মেইন ম্যেনু

ঘাটাইলে পূজা মন্ডপে প্রস্তুতি শেষ, মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু কাল

টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলায় আসন্ন হিন্দু সনাতন ধর্মালম্বিদের বৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্ঠান শারদীয় দুর্গাপূজা মহালয়ারর মধ্যে দিয়ে পূজা আনুষ্ঠানিকতার শুরু হয়ে গেছে।

দুর্গাপূজা উপলক্ষে মন্দিরে মন্দিরে উৎসবের আমেজ শুরু হয়ে গেছে। এবার টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলায় ৭৪টি পূজা মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে পৌর এলাকায় বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট ঘাটাইল শাখার উদ্দ্যোগে ১টি ও শান্তিনগর সার্বজনীন দূুর্গোৎসব সহ ৯টি বাকি ৬৫ টি উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় পারিপারিকভাবে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

রবিবার দেবীর বোধন ও সোমবার ষষ্ঠী পূজার মধ্যে দিয়ে দূুর্গা পূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। এবার দেবী ঘোটকে আগমন করে দোলায় গমন করবে। তাইতো ঘাটাইল উপজেলার সর্বত্র হিন্দু ধর্মালম্বীদের দূুর্গা পূজা আগমন উপলক্ষ্যে আনন্দে মাতোয়ারা আবাল বৃদ্ধ বনিতা। যদিও নবমি ও বিজয়া দশমী এক দিনে হওয়ায় আনন্দ একটু কম হবে তার জন্য হিন্দুদের মাঝে আনন্দের কোন প্রকার কমতি থাকবে না।

দেবি মাকে বরণ করতে সবাই প্রস্তুত বরণডালা নিয়ে। এরই মধ্যে ঘাটাইল দিঘলকান্দি ইউনিয়নে দত্তগ্রাম হাটবাড়ী সার্বজনীন পূজা মন্ডপকে ঝূকিপূর্ন হিসেবে ধরে নিলেও তার জন্য দেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা।

বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মাহজোট ঘাটাইল উপজেলা শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ আর্য্য (সুমন) জানান আমরা আমাদের প্রাণের উৎসব দেবীমাকে বরণ করে নিতে এরই মাঝে সমস্ত প্রস্তুতি নিয়েছে। কোথায় কোন কমতি নেই।

বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মাহজোট ঘাটাইল শাখার সভাপতি বিপুল চন্দ্র চন্দ আসন্ন দূুর্গাপূজা বিষয়ে জানান আমরা সারদীয় দূুগার্পূজাকে সাফল্য মন্ডিত করার জন্য এরই মধ্যে সমস্ত প্রস্তুতি শেষ করেছি এবং কোথায় কোন সমস্য নেই।

এ বিষয়ে ঘাটাইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ কামাল হোসেন জানান আমরা ঘাটাইল উপজেলার দূুর্গা পূজা যাতে নির্বিগ্নে সুষ্ঠভাবে হিন্দু ধর্মালম্বীরা পালন করতে পারে সে জন্য দুই স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে আর ঝুকিপূর্ন হিসেবে ঘাটাইলের ১০টি পূজা মন্ডপকে চি‎‎হ্নত করা হয়েছে তার জন্য হিন্দু নেতৃবৃন্দদের ডেকে ঝুকিপূর্ন পুজামন্ডপের জন্য বাড়তি নিরাপত্তা দেওয়ার প্রতিশ্র“তি দিয়েছি।






মন্তব্য চালু নেই