মেইন ম্যেনু

ঘাস কাটার অপরাধে আঙুল ক্ষতবিক্ষত করে শাস্তি

রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার বখতিয়ারপুর গ্রামে অন্যের জমিতে ঘাস কাটার অপরাধে রেহেনা বেগম (৩৮) নামে এক গৃহবধূর হাতের আঙুল কেটে ক্ষতবিক্ষত করে দিয়েছে এক হাতুড়ে চিকিৎসক।

ওই হাতুড়ে চিকিৎসকের নাম রুবেল হোসেন (৩২)। উপজেলার হাট কানপাড়া বাজারে তার একটি ওষুধের দোকান রয়েছে। তিনি বখতিয়ারপুর গ্রামের আছের আলীর ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বখতিয়ারপুর গ্রামের উজির আলীর স্ত্রী রেহেনা বেগম প্রতিবেশী আছের আলীর জমিতে গবাদি পশুর জন্য ঘাস কাটতে যায়। এ সময় আছের আলীর ছেলে রুবেল হোসেন জমিতে গিয়ে ঘাস কাটার অপরাধে রেহেনা বেগমকে গালিগালাজ করতে থাকে। এক পর্যায়ে চুলির মুঠি ধরে মাটিতে ফেলে দিয়ে পেটাতে থাকে।

ওই সময় রেহেনা কাঁদতে কাঁদতে আর কোনদিন ঘাস কাটবে না বলে হাতজোড় করলেও রুবেলের নির্যাতন থামেনি। রেহেনার হাতে থাকা হাঁসুয়া কেড়ে নিয়ে রেহেনার হাতের আঙুল ক্ষতবিক্ষত করে রুবেল।

এ সময় রেহেনার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে গেলে বীরদর্পে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে রুবেল। পরে রেহেনাকে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়।

দুর্গাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন রেহেনা বেগম অভিযোগ করেন, তার স্বামী অত্যন্ত গরীব বলে এখনো থানায় মামলা করতে পারিনি। অন্যদিকে, রুবেল লোকজন পাঠিয়ে হুমকি দিচ্ছে এ ঘটনায় থানায় যেন মামলা না করা হয়। মামলা করলে তাকে গ্রামে ঢুকতে দেয়া হবে না বলেও হুমকি দেয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে কথা বলা হলে দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পরিমল কুমার চক্রবর্তী জানান, ঘটনাটি সম্পর্কে আমার জানা নাই। তবে এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে কেউ থানায় আসলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।






মন্তব্য চালু নেই