মেইন ম্যেনু

প্ল্যাটফর্মের উপরে ট্রেন

‘ঘুমিয়ে পড়েছিলাম’, দুর্ঘটনার পর স্বীকারোক্তি ট্রেনচালকের

‘সবে ঘুম থেকে উঠে সাইডিং থেকে ট্রেন নিয়ে শিয়ালদহ স্টেশনে যাচ্ছিলাম৷ খুব ক্লান্ত লাগছিল৷ ঘুমে চোখ বুজে আসছিল৷ ট্রেন প্ল্যাটফর্মে নিয়ে যাওয়ার সময় কয়েক সেকেন্ডের জন্য আমি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম৷ আমারই ভুলবশত ট্রেন বাফারে গিয়ে ধাক্কা মারে৷ শেষ মুহূর্তে ব্রেক কষেছিলাম৷ কিন্ত্ত তাতেও ট্রেন দাঁড় করাতে পারিনি৷” রেলকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদে এমনই উত্তর দিয়েছেন রবিবার ভোরের শিয়ালদহ স্টেশনে দুর্ঘটনাগ্রস্ত ট্রেনের চালক৷ তাঁর শরীর কি অসুস্থ ছিল? রেলকর্তারা জানাচেছন, না৷ ট্রেনের ওই চালকের এমন স্বীকারোক্তির পরই তাঁকে রেলের তরফে সাসপেন্ড করা হয়েছে৷ শিয়ালদহের ডিভিশনাল ম্যানেজার জয়া ভার্মা সিনহা বলেন, “ওই চালক জানিয়েছেন, তিনি ট্রেন প্ল্যাটফর্মে ঢোকানোর সময় কয়েক সেকেন্ডের জন্য ঘুমিয়ে পড়েছিলেন৷ যে কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটে৷ ঘটনার জেরে ওই চালককে সাসপেন্ড করা হয়েছে৷” এদিকে শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখার ভ্লঙ্ম নম্বর প্ল্যাটফর্মের যে লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল, তা ঠিক করা হয়েছে৷ ওই লাইন দিয়ে সোমবার সকাল থেকে ট্রেনও চলাচল করছে৷ রবিবার ভোর চারটে নাগাদ শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় সাইডিং থেকে ট্রেন বের করে ভ্লঙ্ম নম্বর প্ল্যাটফর্মে ঢোকাচিছলেন চালক৷ সেই সময় প্ল্যাটফর্মে ট্রেন দাঁড় করানোর নির্দিষ্ট সীমা অতিক্রম করে সেটি সজোরে ধাক্কা মারে বাফারে৷ বিকট শব্দে কেঁপে যায় গোটা স্টেশন৷ দুটি কামরা লাইনচ্যুত হয়ে উঠে পড়ে প্ল্যাটফর্মে৷ ঘটনায় হতচকিত হয়ে যান স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রী থেকে রেল কর্তা, প্রত্যেকেই৷ কোনওমতে চালককে টেনে কেবিন থেকে বের করা হয়৷ তারপর তাঁর মেডিক্যাল পরীক্ষা করা হয়৷ ঘটনাস্হলে পৌঁছয় অ্যাক্সিডেণ্ট রিলিফ ট্রেন৷ ট্রেনের বগি কেটে নিয়ে যাওয়া হয়৷ ক্ষতিগ্রস্ত বগি দুটিকে সরিয়ে বাকি কামরা গুলিকে ফের সাইডিংয়ে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়৷ চলে লাইন এবং প্ল্যাটফর্ম মেরামতির কাজ৷






মন্তব্য চালু নেই