মেইন ম্যেনু

চলছে গুরুতর অপারেশন, আর সেই মুহূর্তে রোগীকে ফেলে সেলফিতে ব্যস্ত ডাক্তাররা!

অপারেশন থিয়েটার। চলছে গুরুতর আহত রোগীর অস্ত্রোপচার। অপারেশন টেবিল ভেসে যাচ্ছে রক্তে। আর ঠিক সেই সময়ে অপারেশন কাজে ব্যস্ত ডাক্তাররা ছবি তুললেন। হাসিমাখা সেলফি এবং তা ছড়িয়ে গেল ফেসবুকে।

এমন ডাক্তারের কাণ্ড দেখে কী বলবেন? একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী এমন ডাক্তারের নাম দিয়েছেন স্টুপিড ডাক্তার, অন্য আরেকজন লিখেছেন কসাই ডাক্তার।

অপারেশন টেবিলের এমন এক ছবি ভাইরাল হয়েছে ফেসবুকে। তবে ছবিটি কোন হাসপাতালের সে সম্পর্কে কোনো ধারণা পাওয়া যায়নি। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা ওই ডাক্তারদের শাস্তি দাবি করেছেন ছবিটি শেয়ার দিয়ে।
উৎসব সরকার ছবিটি শেয়ার দিয়ে লিখেছেন, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে অস্ত্রোপচারের বেডে রোগী মারা যাওয়ার ঘটনা কম নেই। আমার তো মনে হয়, চিকিৎসক নামক এমন কিছু কসাইয়ের কারণেই এমন ঘটনা ঘটে থাকে। আসলে ‘অমানুষ’ কিছু চিকিৎসকদের কাছে রোগীর জীবনের কোনো মূল্য নেই! ভাবটা এমন, রোগী মারা গেলেই বা কী আর মারা না গেলেই বা কি!

যতটুকু জানি এই ছবিটি বাংলাদেশেরই কোনো হাসপাতালের। রক্ত-বন্যায় ভেসে যাচ্ছে অপারেশনের বেডে শুয়ে থাকা রোগীর শরীর আর উনারা (চিকিৎসক) ব্যস্ত সেলফি তোলায়। এদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি…

Mahmud Al Hassan নামে একজন লিখেছেন, কিছু দিন আগে আমার একজন আংকেল এরকম কসাইদের হাত থেকে একটু জন্য বেঁচে গেছেন। তবে ঘটনাটা হলো উনার লিভারে সমস্যা ছিল কিন্তু ঐ হারামি ডাক্তার বলে কি না কিডনিতে সমস্যা। অপারেশন না করলে কিডনি নষ্ট হয়ে যাবে।

Raju Gopal Ghosh লিখেছেন Stupid doctor

Sha Hin নামে একজন লিখেছেন, ওনারা জেনেশুনেই নিশ্চয়ই এমনটা করেছেন..আমরা যেমন. স্পেশাল মুহূর্ত ধরে রাখতে সেলফি তুলি…তেমনি তাদের কাছেও নিশ্চয়ই ওই অপারেশন টা কোনো ‘স্পেশাল’ কেস ছিল..। এজন্য ই হয়তো তারা এমনটা করেছেন|

আর non medical দের কাছে হঠাৎ এই রক্তমাখা ছবিটি ভয়াবহ ঠেকতে পারে… কিন্তু তাদের কছে এটা বড় সার্জনদের কাছে এটা ভাত খাওয়ার মতোই স্বাভাবিক ব্যাপার। তাই সেলফি তোলা এখানে খুব বড় সমস্যা হওয়ার কথা নয়. ..আর শুধু ডাক্তাররাই না সাংবাদিক বা অন্য পেশার লোকজনেরও কিন্তু কর্মস্থানে এ সেলফি রোগ দেখা যায়!






মন্তব্য চালু নেই