মেইন ম্যেনু

চলতি মাসে ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা

চলতি মাসে বঙ্গোপসাগরে দুই থেকে তিনটি নিম্নচাপের কারণে ঘূর্নিঝড়ের আশংকা রয়েছে।

সোমবার বিকেলে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতরের বিশেষজ্ঞ কমিটির নিয়মিত বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়। ঢাকায় আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক, চেয়ারম্যান ও বিশেষজ্ঞ কমিটি শাহ আলমের সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

আবহাওয়া অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, নভেম্বর মাসে স্বাভাবিকের চেয়ে কিছু বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হতে পারে ২-৩টি নিম্নচাপ। এর মধ্যে ১-২টি নিম্নচাপ ঘূর্নিঝড়ে রূপ নিতে পারে। রাতের তাপমাত্রা ক্রমান্বয়ে হ্রাস পাবে এবং এ মাসের শেষ সপ্তাহে রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের নিচে থাকতে পারে। দেশের উত্তর, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে এবং নদ-নদী অববাহিকায় ভোর থেকে সকাল পর্যন্ত হালকা ও মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে।

দেশের প্রধান নদ-নদীর পানি প্রবাহ স্বাভাবিক থাকবে। দেশের দৈনিক গড় বাষ্পীভবন ২ দশমিক ৭৫ থেকে ৩ দশমিক ৭৫ মিলিমিটিার এবং গড় সূর্য কিরণকাল ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা থাকতে পারে।

বিশেষজ্ঞ কমিটি নভেম্বর মাসের দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে প্রাপ্ত আবহাওয়া উপাত্ত বিশ্লেষণ করে এ তথ্য পায়।

বৈঠকে অক্টোবর মাসে সংগঠিত আবহাওয়ার বিভিন্ন তথ্য/ উপাত্ত পর্যালোচিত হয়। এতে দেখা যায় যে, অক্টোবর মাসে বাংলাদেশে গড় বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ও দিনসংখ্যা সারাদেশে স্বাভাবিকের চেয়ে ২১শতাংশ কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। চট্টগ্রাম বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা ২৬ শতাংশ বেশি, বরিশাল বিভাগে প্রায় স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হয়েছে এবং দেশের অন্যান্য বিভাগে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু(বর্ষা) দেশের ওপর বেশির ভাগ সময় কম সক্রিয় থাকার কারণে সারাদেশে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। অক্টোবর মাসে বঙ্গোপসাগরে কোন নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়নি। তবে তিনটি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে দ্বিতীয় লঘুচাপটি সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয় এবং পরবর্তী সময়ে সাগরেই দুর্বল হয়ে মৌসুমী অক্ষের সঙ্গে মিলিত হয়।

 

 






মন্তব্য চালু নেই