মেইন ম্যেনু

চিকেন স্কিন বা বাম্পস সম্পর্কে আপনার যা জানা প্রয়োজন

আপনার ঊর্ধ্ববাহুর উপরের অংশে ও উরুতে ছোট ছোট ব্রণের মত দেখতে ফোলা অংশ দেখে অবাক হয়েছেন কখনো? আপনি যা কিছুই করেন না কেন এগুলো যায়না। ত্বকের এই অবস্থাকে কেরাটোসিস পাইলারিস বলে। পৃথিবীর ৮০ শতাংশ মানুষই এই সমস্যাটিতে ভুগে থাকেন। একে “চিকেন স্কিন” ও বলা হয়ে থাকে। এটি খুব সহজেই চেনা যায় গোলাপি ও রুক্ষ ত্বক দেখে। এই বাম্প সম্পর্কে আরো কিছু জেনে নেই আসুন।

১। যদি আপনার KP হয়ে থাকে তাহলে আপনি একা নন। যুক্তরাজ্যের “National Health Service” বা NHS এর মতে, যুক্তরাজ্যে প্রতি তিনজনের মধ্যে একজন এই সমস্যাটিতে ভুগে থাকেন। এটি আপনার সার্বিক স্বাস্থ্যের প্রতিফলন নয়। সম্পূর্ণ সুস্থ একজন মানুষ সাধারণত আক্রান্ত হয় KP তে।

২। কম বয়সিদের, মহিলাদের ও ফর্সা ত্বকের মানুষদের এই সমস্যাটি হতে দেখা যায় বেশি। যদিও এটি যেকোন বয়সের, যে কোন লিঙ্গের বা যে কোন বর্ণের মানুষের ই হতে পারে।

৩। যদিও এটি সংক্রামক নয় কিন্তু বংশানুক্রমিক সমস্যা। ব্রিটিশ এ্যাসোসিয়েশন অফ ডারমাটোলজিস্ট এর মতে, যদি আপনার বাবা-মায়ের কারো এই সমস্যাটি থাকে তাহলে আপনার হওয়ার সম্ভাবনা ৫০%।

৪। এটি নিয়ে চিন্তা করার কিছুই নেই কারণ এটি সম্পূর্ণ নিরীহ। KP আপনার স্বাস্থ্যের উপর কোন প্রভাব ফেলে না। এটি কসমেটিক সমস্যা।

৫। এটি সাধারণত শৈশবে দেখা দেয়, বয়ঃসন্ধিকালে খারাপ হয় এবং বড় হওয়ার সাথে সাথে ভালো হয়ে যায় বা সম্পূর্ণ রূপে অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে। ৫০-৮০% কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে এর প্রভাব দেখা যায়। প্রবীণদের মধ্যে খুবই কম হতে দেখা যায়।

৬। NHS এর মতে, ত্বকের বাহিরের স্তরে কেরাটিনের অত্যধিক পরিমাণ KP এর কারণ। কেরাটিন এক ধরণের প্রোটিন যা চুলের গোড়ায় পাওয়া যায়। অতিরিক্ত কেরাটিন হেয়ার ফলিকলকে বন্ধ করে দেয়, এর ফলে ত্বকের ছিদ্রগুলো আকারে বড় ও রুক্ষ হয়ে ফুলে যায়।

৭। KP বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ঊর্ধ্ববাহু ও উরুতে হয়ে থাকে। বিরল ক্ষেত্রে অগ্রবাহু ও পিঠের উপরের দিকে হয়ে থাকে। আরো কিছু ব্যতিক্রম ক্ষেত্রে মুখ, নাক, মাথার তালু ও আইভ্রুতেও হতে পারে।

৮। এটি ভারসাম্য রক্ষা করে চলে অর্থাৎ উভয় হাতে, উভয় পায়ে এবং মুখের উভয় পাশে হয়।

৯। শীতে এর প্রকোপ বৃদ্ধি পায়। খুব বেশি শুষ্ক ত্বক KP এর জন্য উপযুক্ত তাই একজিমা আছে এমন মানুষদের ক্ষেত্রে বেশি হতে দেখা যায়। শীতের ঠাণ্ডা ও শুষ্ক আবহাওয়া এর অবস্থাকে আরো খারাপ করে তুলে।

১০। KP কখনোই পুরোপুরি ভালো হয়না। কিন্তু কিছু পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে এই অবস্থার উন্নতি ঘটাতে পারেন। এর চিকিৎসার জন্য ডারমাটোলজিস্টের কাছে যাওয়ার কোন প্রয়োজন নেই। তাই আপনি যা যা করতে পারেন তাহল –

· ভালো ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন দিনে দুইবার। স্যালিসাইলিক এসিড বা ল্যাক্টিক এসিড সমৃদ্ধ ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন।

· ভিটামিন এ সমৃদ্ধ ক্রিম ব্যবহার করুন যা কোষের বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে এবং হেয়ার ফলিকলকে বন্ধ হয়ে যেতে বাধা দেয়।

· নিয়মিত এক্সফলিয়েট করলে মরা চামড়া দূর হয় যা বাম্পস এর জন্য ভালো।

· বোরাক্স পরিষ্কারক যা KP নিরাময়ে কাজ করে। ৫ টেবিল চামচ বোরাক্সের সাথে ৩/৪ কাপ পানি মিশান। মিশ্রণটি আক্রান্ত জায়গায় লাগিয়ে সারারাত রাখুন। পরদিন ত্বক টানটান হয়ে যেতে পারে। কিন্তু এটি ত্বকের লালভাব দূর করবে।

কেরাটোসিস পাইলারিস দূর হয়ে গেলেও আবার আসতে পারে। তবে বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে এটি ভালো হতে থাকে। তাই আত্মবিশ্বাসী থাকা প্রয়োজন।






মন্তব্য চালু নেই