মেইন ম্যেনু

চুরি করতে এসে পেট কনকন, বাথরুম থেকে চোর ধরল পুলিশ (ভিডিও)

এ কী বিড়ম্বনা! চুরি করতে এসে শেষে কি না পেট কনকন? অগত্যা অস্ত্রভর্তি ব্যাগ শাগরেদেদের জিম্মায় রেখে দে ছুট বাথরুমে। গৃহস্থের ছাদের বাথরুমে যখন পেট খালি করেছে চোর বাবাজীবন, তখনই খবর পেয়ে পুলিশ ঘিরে ফেলেছে গোটা ঘর। পুলিশকে দেখতে পেয়েই বাকি তিন চোর পগারপার। যাওয়ার আগে বাথরুমের দরজায় টোকা মেরে তাগাদা দিয়ে গিয়েছে পার্টনারকে। কিন্তু তখন মনের সুখে চাপমুক্ত হয়েই চলেছে সে। যতক্ষণ না পেট হালকা হয়, ততক্ষণ কি আর বাইরে বেরনো যায়?

অবস্থা এমন যে, এই বসন্তের ভোরে পুলিশকেও বাথরুমের বাইরে ঠায় আড়াই ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। মাঝেমধ্যেই দিতে হয়েছে পুলিশি হুমকি, “বেরিয়ে আয়! নইলে বাথরুমের দরজায় গুলি করব!’’ চোর তবু বেরোতে নারাজ। শেষ পর্যন্ত সে বেরিয়ে আসে। শরীর একেবারে হালকা।

বার্নপুরের সেন্ট্রাল পার্কের এই ঘটনায় শুক্রবার দিনভর বেশ মজা লুটেছেন এলাকাবাসী। হীরাপুর থানার পুলিশ জানিয়েছে, ধৃতের নাম সব্যসাচী গুপ্তা। বাড়ি বাঁকুড়ার শালতোড়ায়। নিউটাউনে ১৬ নম্বর রোডে বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকে। তার থেকে তিনটি পিস্তল ও কয়েক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে মিলেছে ট্যাব, ল্যাপটপ, মোবাইল, গয়না, টাকাকড়ি।
যাঁর বাড়িতে এই ঘটনা, সেই দীপক বন্দ্যোপাধ্যায় সপিরাবের ঝাড়খণ্ডে থাকেন। বাড়ির নীচতলায় থাকেন ভাড়াটে। তিনিই উপরে খুটখাট শব্দ পান। পরে জানা যায়, রান্নাঘরে উঁকিঝুঁকি দিতে গিয়েই চোরেরা বাসনকোসন ফেলে ওই শব্দ তুলেছিল। ভাড়াটে ফোন করেন দীপকবাবুকে, সেখান থেকে পুলিশে ফোন, অতঃপর পুলিশের আগমন।

ধৃত সব্যসাচী এমনিতে বেশ ধুরন্ধর। তার বিরুদ্ধে ১১টি চুরির অভিযোগ রয়েছে। কিছুতেই পুলিশের নাগালে আসছিল না সে। শেষ পর্যন্ত পেটের গোলামালে ফেঁসে গেল সে। ধরা পড়ার সঙ্গে আরও একটি গুণাগার দিতে হয়েছে তাকে। তাকে দিয়েই বাথরুম সাফ করিয়েছে পুলিশ।-এবেলা

দেখুন ভিডিওটি এখানে ক্লিক করে…






মন্তব্য চালু নেই