মেইন ম্যেনু

চুড়ান্ত ভাবে বাড়লো বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম

আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানির দাম কমার পরও গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাস ও বিদ্যুতে দাম বাড়িয়েছে সরকার। বিদ্যুতের দাম গ্রাহক পর্যায়ে ২ দশমিক ৯৭ শতাংশ এবং গ্যাসের দাম গড়ে ২৬ দশমিক ২৯ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) চেয়ারম্যান এ আর খান সাংবাদসম্মেলন করে এ বাড়ানোর কথা জানান।

তিনি বলেন, এখন থেকে প্রতিটি চুলার কানেকশন নিতে ৬০০ টাকা করে লাগবে ,প্রক্ষান্তরে দুটি চুলার কানেকশন নিতে গ্রাহকদের লাগবে ৬৫০ টাকা । যা আগে ছিলো যথাক্রমে ৪০০টাকা ও ৪৫০ টাকা।

বিদ্যুতে ১ থেকে ৫০ ইউনিট পর্যন্ত ইউনিট প্রতি নতুন করে কোন টাকা লাগবে না আগের দরে দিতে হবে। তবে ৫০ থেকে ৭৯ ইউনিট খরচে ইউনিট প্রতি ২৭ পয়সা বেড়ে ৩.৫৩ টাকা থেকে ৩.৮০ টাকা দিতে হবে।

চা বাগানে গ্যাসের বিল ইউনিট প্রতি বেড়ে ৬ টাকা ৪৫ টাকা এবং শিল্পকারখানায় বেড়ে ৬টা ৭৪ পয়সা করা হয়েছে। তবে সার কারখানা ও বিদ্যুৎকেন্দ্রে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম আগের মতোই আছে।

ক্যাপটিভ পাওয়ারপ্ল্যান্টে গ্যাসের দাম প্রতি ইউনিট ৮ টাকা ৩৬ পয়সা বাড়ানো হয়েছে। আগে ছিল ৪টাকা ১৮ পয়সা। আর বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম ইউনিট প্রতি বাড়ানো হয়েছে ১১টাকা ৩৬ পয়সা।

অপরদিকে বিদ্যুতের মূল্য লাইফ লাইন ক্রেডিটের (নিম্ন আয়ের মানুষদের জন্য) ক্ষেত্রে বাড়েনি (শহরে বিল ইউনিট প্রতি ৩ টাকা ৩৩ পয়সা এবং গ্রামে ৩ টাকা ৩৬ পয়সা)।

গ্রাহক পর্যায়ে ১-৭৫ ইউনিটের জন্য নতুন মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ টাকা ৮০ পয়সা; ৭৩-২০০ ইউনিটে বেড়ে ৫ টাকা ১৪ পয়সা, আগে ছিল ৫ টাকা ১ পয়সা; ২০১-৩০০ ইউনিটে ৫ টাকা ৩৬ পয়সা,।

এর আগে গতকাল বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় শিল্প উন্নয়ন পরিষদ এবং প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টার সভাপতিত্বে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের মূল্যহার সমন্বয় সংক্রান্ত পৃথক দুটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। দুই বৈঠকেই বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়।

প্রসঙ্গত, আজ গ্যাস এবং বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ঘোষণা এলেও তা তা কার্যকর করা হবে ১ সেপ্টেম্বর থেকে।






মন্তব্য চালু নেই