মেইন ম্যেনু

চোখের নিমিষে দূর করুন কাপড়ে লাগা ঘামের দাগ!

প্রচন্ড গরম! রাস্তায় বের হলে ঘাম তো হবেই। আর ঘাম হওয়া মানেই জামার হাতার নিচে, পিঠে কিংবা শার্টের কলারে ঘামের হলদেটে দাগ হবেই হবে। সবার সামনে দাগ নিয়ে যাওয়াটা বেশ বিব্রতকর। তবে এই দাগ যাতে না পড়ে সে জন্য রয়েছে কিছু উপায়। এই বিব্রতকর পরিস্থিতি এড়াতে ‘সোয়েট প্যাডস’ অথবা ‘অ্যান্টিপার্সপরান্ট রোল অন’ ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। আপনার জন্যে রইল এমনই কিছু উপায়। যাতে দাগ এড়ানো সম্ভব। যেমন…।

সোয়েট প্যাড ব্যবহার: যাদের হাতের নীচে অতিরিক্ত ঘামে তারা কাপড়ের নিচে সোয়েট প্যাড ব্যবহার করতে পারেন। এটি বিশেষ ধরনের একটি তুলোর প্যাড যা আঠার সাহায্যে বগলের কাপড়ের সঙ্গে আটকে দেওয়া হয়, এতে তুলা ঘাম শুষে নেয়। ফলে কাপড়ে দাগ পড়ে না।

অ্যান্টিপার্সপরান্ট ব্যবহার: সাধারণ ডিওডোরেন্ট কাপড় দাগুমুক্ত রাখতে পারে না। তাই বেছে নেওয়া যেতে পারে অ্যান্টিপার্সপরান্ট ডিওডোরেন্ট। এইগুলো কাঁধ এবং হাতের নীচে দীর্ঘ সময় শুষ্ক রাখে। ফলে কাপড়ে ঘামের দাগ পড়ার সম্ভাবনা কমে।

ট্যালকম পাউডার ব্যবহার: পাউডার ঘাম নিঃসরণকারী লোমকূপগুলো কিছু সময় বন্ধ রাখে। ফলে ঘামের মাত্রা কমে আসে। তবে পাউডার ব্যবহারের আগে ও পরে যখনই চান করবেন তখন অবশ্যই বাহুমূল ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে।

বগলের নীচে শেভ করা: বগলের অতিরিক্ত লোমের কারণে ঘাম বেশি হতে পারে এবং এ কারণে ব্যাক্টেরিয়ার সংক্রমণও বৃদ্ধি পেতে পারে। তাই নিয়ম করে বগলের শেভ করা উচিত। এতে ঘাম নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি দুর্গন্ধও কমে আসবে। আর ঘাম কম হলে কাপড়ে দাগও কম হবে।

মোছার জন্য টিসু: শুকনা বা ভেজা (ওয়েট টিসু), যে কোনও টিসুই ঘাম নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য উপকারী। ব্যাগে রাখা বেশ সহজ তাই বাড়তি ঝামেলা এড়ানো যায়। আর অতিরিক্ত ঘাম মুছে ফেললে কাপড়ে দাগ হওয়ার ঝামেলাও থাকে না।






মন্তব্য চালু নেই