মেইন ম্যেনু

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে নাম আসায় সাংবাদিক সমিতি থেকে বহিষ্কার

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ পাওয়ায় ‘মর্যাদা ক্ষুণ্ণের’ কারণ দেখিয়ে সহ সভাপতিকে বহিষ্কার করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতি।

বৃহস্পতিবার সমিতির সভাপতি আসিফ ত্বাসীন ও সাধারণ সম্পাদক লালন মাহমুদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সহসভাপতি রেজাউদ্দৌলা প্রধানকে (রেজা আকাশ) বহিষ্কারের কথা জানানো হয়।

সাংবাদিক সমিতির এই পদক্ষেপকে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে ‘ষড়যন্ত্র’ বলেছেন সংগঠনটির সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। রেজা আকাশ অভিযোগ করেছেন, সমিতিতে ‘বিএনপি ও জামায়াতপন্থিরা’ এই পদক্ষেপ নিয়েছে।

সাংবাদিক সমিতির বুধবারের বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রেজা আকাশকে বহিষ্কার করা হয় বলে জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “সাংবাদিক সমিতির একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে ছাত্র সংগঠনে পদ নেওয়ার মাধ্যমে সমিতির মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে মত দেন সমিতির সদস্যরা। সমিতি সদস্যরা মনে করেন, এটি স্বাধীন ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার পরিপন্থি।

“পরবর্তীতে সমিতির সদস্যদের প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে সমিতির সহসভাপতি পদে থাকাকালীন ছাত্রলীগের পদ গ্রহণ করে সমিতির মর্যাদা ক্ষুণ্ন করায় দৈনিক সমকালের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রেজাউদ্দৌলা প্রধান আকাশকে সমিতি থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।”

সমিতির কোনো সদস্য অন্য যে কোনো ছাত্র সংগঠনের কোনো পদে থাকলে তাদের আগামী ১০ দিনের মধ্যে ওই পদ ছাড়তে বলা হয়েছে।

“আগামী ৫ মার্চের মধ্যে বিষয়টি লিখিতভাবে সমিতিকে অবহিত করতে হবে। অন্যথায় ওই দিন থেকে প্রমাণসাপেক্ষে তাদের সদস্যপদ বাতিল বলে গণ্য হবে।”

দৈনিক সমকালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রেজা আকাশ ছাত্রলীগের গত সোমবার ঘোষিত পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহ-সম্পাদক পদ পেয়েছেন। তিনি গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে পড়েন।

রেজা আকাশ বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বছর থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে প্রত্যক্ষ যুক্ত ছিলাম। পড়াশুনার পাশাপাশি ক্যাম্পাসে সাংবাদিকতা করি, এসময় পরোক্ষভাবে ছাত্রলীগে যুক্ত থেকেছি।

“ছাত্রলীগের নিয়মিত কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছি দায়িত্বের অংশ হিসেবে। সমিতিতে সদস্য থাকা অবস্থায় অতীতে ছাত্র সংগঠনের পদধারী থাকা ও সমিতির গঠনতন্ত্রে এবিষয়ে কোনো স্পষ্ট নিয়ম না থাকায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ নিই।”

বহিষ্কারের কোনো চিঠি পাননি জানিয়ে তিনি বলেন, “বিএনপি জামায়াতপন্থি সদস্যরা গায়ের জোরে আমাকে একতরফাভাবে বহিষ্কার করেছে।”

ছাত্রলীগ সভাপতি সোহাগ বলেন, “ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে নানাভাবে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। এই ষড়যন্ত্রে জড়িতরা মুক্তিযুদ্ধে চেতনার পরিপন্থি।

“রেজা আকাশ ছাত্রলীগের সঙ্গে যুক্ত, তাই কমিটিতে তাকে মূল্যায়ন করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ পাওয়ায় সমিতির মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয়েছে। এটা বলা একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরোধী।”






মন্তব্য চালু নেই