মেইন ম্যেনু

ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় আ.লীগ নেতা

রামগঞ্জে কলেজছাত্রীর সঙ্গে গভীর রাতে আপত্তিকর অবস্থায় হাতেনাতে ধরা খেয়েছেন এম এ মমিন পাটোয়ারী নামে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের এক নেতা। এ ঘটনায় স্থানীয়রা তাকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছেন।

শুক্রবার রাত ১২টার দিকে উপজেলার কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের শেখপুরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আটাক এম এ মমিন পাটোয়ারী কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক ও রামগঞ্জ উপজেলার নঁওগা ইউনিয়নের বরিআইশ গ্রামের মৃত আজিজ উল্যা মাস্টারের ছেলে।

এলাকাবাসী জানান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মমিন পাটোয়ারী পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের কলেজে পড়া মেয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে পরকীয়া করে আসছিলেন। শুক্রবার রাতে তিনি দেখা করতে ওই ছাত্রীর বাড়ি যান। এলাকার লোকজন বিষয়টি বুঝতে পেরে দু’জনকেই আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে গণপিটুনি দেয়। সংবাদ পেয়ে পুলিশ রাত ১২টার দিকে মমিনকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে। তবে শনিবার সকালে হাসপাতালে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দেওয়ান বাচ্চু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বিয়ের কথা বলে আওয়ামী লীগ নেতা মমিন পাটোয়ারী দীর্ঘদিন ধরে ওই মেয়ের সঙ্গে পরকীয়া করে আসছিলেন। শুক্রবার রাতে দু’জনকে বাড়ির বাইরে থেকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে গ্রামবাসী। বিয়ের পরও একজন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা কীভাবে এ কাজ করতে পারে এটা তার জানা নেই।

রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সৈকত মাহমুদও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তবে এম এ মমিন পাটোয়ারী মোবাইল বন্ধ থাকায় একাধিকবার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

তবে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এমরান হোসেন এমু বলেন, ‘শুক্রবার রাতে আওয়ামী লীগ নেতা মমিন পাটোয়ারী ঢাকা থেকে আসার সময় ওই এলাকার কিছু জামায়াত-বিএনপির নেতাকর্মী তার ওপর হামলা করে। এ সময় তাকে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ ব্যাপারে রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোঁতা মিয়া জানান, অনৈতিক কাজের অভিযোগে স্থানীয়রা আওয়ামী লীগ নেতা মমিনকে গণপিটুনি দিয়েছে। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে এ ব্যাপারে মেয়েটির কোনো অভিযোগ না থাকায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় যদি কেউ অভিযোগ করে তাহলে ওই নেতার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।






মন্তব্য চালু নেই