মেইন ম্যেনু

‘ছিলাম, তবে আমি তরুণীর গায়ে হাত দেইনি’!

‘পহেলা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি মোড়ে নারী লাঞ্ছনার ঘটনার সময় আমি সেখানে উপস্থিত ছিলাম। তবে আমি নিজে কোনো নারীকে লাঞ্ছিত করিনি। ঘটনার পর এলাকাতেই ছিলাম। পরে ছবি প্রকাশের পর কিছুদিন ছিলাম আত্মগোপনে। পরে আবার এলাকায় ফিরে আসি। তবে ঘটনার সময় মুখে দাড়ি ছিল। গ্রেফতার এড়াতে দাড়ি কেটে ফেলেছি।’ মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এ কথা বলেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি মোড়ে নারী লাঞ্ছনার ঘটনার ৯ মাস পর গ্রেফতার হওয়া মোঃ কামাল। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ তাকে দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। গতকাল ছিল রিমান্ডের প্রথম দিন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর দীপক কুমার দাস বলেন, পুরান ঢাকার বাসিন্দা কামাল বিবাহিত। দু সন্তানের জনক। লেখাপড়া জানে না। জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছ থেকে অন্যদের ব্যাপারে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে জানিয়েছে, প্রতিবছরের মতো ২০১৫ সালেও পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানে গিয়েছিল। তার সঙ্গে অন্য কেউ ছিল না। তবে টিএসসি মোড়ে ছিল প্রচণ্ড ভিড়। এ ভিড়ের মধে পড়ে আটকা পড়ে কয়েকজন তরুণী। আর সেই সুযোগে কয়েকজন নানাভাবে তাদের শরীরে হাত দিয়েছিল বলে সে দেখেছে। তবে নিজে এ কাজে অংশ নেয়নি।

তদন্ত কর্মকর্তা আরো বলেন, নানাভাবে কামালকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। কিন্তু প্রতিবারই সে একই ধরনের কথা বলছে। তবে কামাল জানিয়েছে, সে মনে করেছিল, ভিড়ের মধ্যে এ ঘটনায় তেমন কিছু হবে না। ঘটনার পর সে এলাকাতেই অবস্থান করেছে। কিন্তু কয়েক দিন পর পত্রিকায় ছবি প্রকাশ পাওয়ায় সে ভয় পেয়ে যায়। এ অবস্থায় সে দাড়ি কেটে ফেলে অন্যত্র আত্মগোপন করে। আত্মগোপনের মাস দেড়েকের মধ্যে এলাকায় ফিরে সে স্বাভাবিকভাবেই তার কাঁচামালের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছিল।

গত ১ বৈশাখে টিএসসি এলাকায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে ৯টার মধ্যে হাজার হাজার মানুষের উপচেপড়া ভিড়ে উচ্ছৃঙ্খল কিছু যুবক মেয়েদের শ্লীলতাহানি করে। এ ঘটনায় পরদিন শাহবাগ থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের সংশ্লিষ্ট ধারায় অজ্ঞাতনামা কতিপয় যুবকের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।






মন্তব্য চালু নেই