মেইন ম্যেনু

ছুটির আগেই ফাঁকা সচিবালয়!

আগামীকাল বুধবার ঈদের আগে শেষ কার্যদিবস হলেও একদিন আগে মঙ্গলবারই অনেকটা ফাঁকা হয়ে গেছে প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয়। মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকেই সেখানে বাজতে থাকে বিদায়ী সুর।

মঙ্গলবার বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ঘুরে দেখা গেছে, দুপুরের পরপরই অনেকে বাড়ির উদ্দেশে রওয়ানা দিয়েছেন। কেউ কেউ আজ মঙ্গলবার ঢাকা না ছাড়লেও আগামীকাল আর অফিস করছেননা বলে জানা গেছে। আবার অনেকে বুধবার সকালে অফিসে এসে হাজিরা দিয়েই চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত পাকা করে ফেলেছেন মঙ্গলবার দুপুরেই।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান মঙ্গলবার সকালে গ্রামের বাড়ি দিনাজপুরে চলে গেছেন। তার মন্ত্রণালয়ে সচিব মেজবাহ-উল আলম মঙ্গলবার অফিস করেছেন। তবে মন্ত্রী না থাকায় অনেক কর্মকর্তা আগাম বাড়ি চলে গেছেন বলে জানা গেছে।

বেশির ভাগ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী মঙ্গলবার সচিবালয়ে আসেননি। তাদের অনেকেই নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় চলে গেছেন বলে জানা গেছে। আর এই সুযোগটি কাজে লাগিয়েছেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। তারা একদিন আগেই অফিস ছেড়েছেন।

মঙ্গলবার সরেজমিনে দেখা যায়, স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য, শ্রম ও কর্মসংস্থান, শিক্ষা, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজসম্পদ, নৌপরিবহন, খাদ্য, ভূমি এসব মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দপ্তরে দুপুরের পর খুব কমসংখ্যক কর্মকর্তা-কর্মচারীকে তাদের টেবিলে দেখা গেছে।

কাজ হবে না- এমন ভাবনায় মঙ্গলবার সচিবালয়ের অভ্যর্থনা রুমেও দর্শনার্থীদের ভিড় হয়নি। রুমটি প্রায় খালি দেখা গেছে। স্বাভাবিক সময়ে অভ্যর্থনা রুম ছাড়িয়ে দর্শনার্থীদের ভিড় জমে পার্শ্ববর্তী ওসমানী উদ্যানেও।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, ঈদের ছুটি শুরুর আগের দিন হওয়ায় মঙ্গলবার সচিবালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতির হার ৭০ শতাংশেরও কম।

সাধারণত ঈদের সময় তিন দিন ছুটির সঙ্গে আরও দুই-একদিন মিলিয়ে অনেকেই পরিবার নিয়ে গ্রামের বাড়িতে যান।

এবার সপ্তাহের শেষে ছুটি শুরু হচ্ছে বলে অনেকে রবিবার ছুটি নিয়েছেন।

যারা বুধবার ছুটি নেনটি তাদের অনেকে ঈদের পর রবিবার ছুটি নিয়েছেন বলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান।






মন্তব্য চালু নেই