মেইন ম্যেনু

জঙ্গি কর্মকাণ্ডে শিশুদের ব্যবহার বাড়িয়েছে আইএস

সিরিয়া এবং ইরাকে চলমান জঙ্গি তৎপরতায় শিশুদের ব্যবহার বেড়েই চলেছে। এ বছর আইএসের সাথে সম্পৃক্ত শিশুদের সংখ্যা আরও বেড়েছে। এর সংখ্যা গত বছরের সংখ্যার দ্বিগুণ।

জর্জিয়া স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক প্রায় তের মাস ইরাক এবং সিরিয়ায় আইএস জঙ্গিদের অভ্যন্তরীণ কর্মকাণ্ড বিশ্লেষণ করে এই গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

এর আগে একটি গবেষণায় বলা হয়েছিল, ২০১৪ সালে কমপক্ষে ৮৯ আইএস শিশু বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়। যাদের প্রায় ৩৯ ভাগ শিশু মারা গেছে বিমান হামলায় এবং প্রায় ৩৩ ভাগ মারা গেছে গাড়ি বোমা হামলায়।

গবেষণা সহকারী চার্লি উইনটার বলেছেন, এটা শুধু গবেষণার কথা নয় বরং গত বছর আইএস নিজেই শিশুদের জঙ্গি তৎপরতায় শিশুদের ব্যবহারের কথা প্রকাশ্যে স্বীকার করেছিল।

তিনি বলেন, আইএস সংশ্লিষ্ট শিশুদের প্রায় ৬০ ভাগের বয়স ১২ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। এদের মধ্যে ৬ ভাগের বয়স ১২ বছরের মধ্যে। এছাড়াও ১৮ ভাগ এমন শিশু রয়েছে যারা বেঁচে থাকার জন্য যুদ্ধ করে না। তাদের কাজ প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করা যতক্ষণ না তারা নিহত হয়।

গবেষণাটিতে বলা হয়েছে, আইএস সংশ্লিষ্ট শিশুদের অধিকাংশই আসে ইরাক এবং সিরিয়া থেকে। এছাড়াও ইয়ামেন, সৌদি আরব, তিউনিসিয়া এবং লিবিয়া থেকে আনা হয় এসব শিশুদের। অল্প সংখ্যাক আসে যুক্তরাজ্য থেকে।

প্রশিক্ষণ শেষে বেশিরভাগ শিশুকে তারা ইরাকেই মোতায়েন করে। গবেষকরা বলেন, জঙ্গিরা শিশুদের সাধারণত বড়দের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। কখনও বা বিশেষ কোন অভিযানে।

গবেষকরা বলেন, আইএস জঙ্গি তৎপরতায় যেভাবে শিশুদের ব্যবহার করছে তা খুব উদ্বেগজনক। আমরা কি কেউ আইএস নিয়ন্ত্রিত এমন কোন বিশ্বের কথা কল্পনা করতে পারি? আমাদের এখন ভাবা উচিত আসলে আমরা কোথায় যাচ্ছি। শিশুদের জন্য বাসযোগ্য পৃথিবী গড়াই আমাদের কাজ কিন্তু তার পরিবর্তে যা হচ্ছে তা সত্যিই ভালো কোন বার্তা বহন করে না।






মন্তব্য চালু নেই