মেইন ম্যেনু

জন্মবিরতিকরণ পিল এন্ডোমেন্ট্রিয়াল ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

যে নারীরা জন্মনিয়ন্ত্রণকরণ পিল খেয়ে থাকেন তাদের দেহে দীর্ঘমেয়াদে এন্ডোমেন্ট্রিয়াল ক্যান্সারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধীব্যবস্থা গড়ে ওঠে। আগের বহু গবেষণা প্রতিবেদনের ওপর পর্যালোচনা করে এ তথ্য দিয়েছেন গবেষকরা। ব্রিটেনের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল গবেষক এ পর্যালোচনা প্রতিবেদন করেন।

এ গবেষণায় ৩৬টি গবেষণাপত্র পর্যবেক্ষণ করা হয়। গোটা বিশ্বের ১ লাখ ৪০ নারীর ওপর ওই সব গবেষণা পরিচালিত হয়েছিল যারা জন্মনিয়ন্ত্রণকরণ পিল খেয়ে থাকেন।

প্রধান গবেষক ভ্যালেরি বেরাল জানান, এই পর্যালোচায় নিশ্চিতভাবে প্রমাণিত হয়েছে যে, জন্মবিরতিকরণ পিল নারীদের দেহে এন্ডোমেন্ট্রিয়াল ক্যান্সারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধীব্যবস্থা গড়ে তোলে যা ৩০ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। এই পিল সেবন করলে প্রতি পাঁচ বছর অন্তর এন্ডোমেন্ট্রিয়ার ক্যান্সারের ঝুঁকি ২৪ শতাংশ হারে কমে আসে। এমন দীর্ঘদিন পিল খাওয়ার পর যারা ২-৩ যুগ পর্যন্ত পিল খাওয়া বন্ধ করেছেন তাদের দেহেও প্রতিরোধীব্যবস্থা বিরাজ করে।

ইউএস ন্যাশনাল ক্যান্সার ইনস্টিটিউট জানায়, জন্মনিয়ন্ত্রণকরণ পিল স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে। তা ছাড়া সার্ভিকেল এবং লিভারের জন্যে ক্ষতিকর। কিন্তু এই ওষুধ আবার এন্ডোমেন্ট্রিয়াল ক্যান্সার এবং ওভারিয়ান টিউমারের ঝুঁকি হ্রাস করে।

এন্ডোমেন্ট্রিয়াম মূলত জরায়ুর আস্তরণের উপাদান যাতে বয়স্কালে ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারে। স্থূলতা, সন্তান জন্ম না হওয়া, খুব কম বয়সে পিরিয়ড শুরু হওয়া এবং খুব বেশি বসয়ে মেনোপজে উপনীত হওয়ার কারণে এই ক্যান্সারের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।

জন্মবিরতিকরণ পিল এবং এন্ডোমেন্ট্রিয়াল ক্যান্সারের মধ্যে সম্পর্ক খুঁজতে গবেষকরা ২৭ হাজার ২৭৬ জন নারীর ওপর গবেষণা চালান যারা এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন। সেই সঙ্গে আরো ১ লাখ ১৫ হাজার ৭৪৩ জন নারীর ওপরও গবেষণা পরিচালিত হয় যা পিল সেবন করেছেন এবং ক্যান্সারে আক্রান্ত হননি। এ ছাড়া আমেরিকা, ইউরোপ, জাপান, চীন, অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় পরিচালিত সংশ্লিষ্ট গবেষণা প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হয়।
সূত্র : ফক্স নিউজ






মন্তব্য চালু নেই