মেইন ম্যেনু

জানেন কি, হোয়াটসঅ্যাপে চ্যাট কখনও ডিলিট হয় না কেন?

ফেসবুক অধীনস্থ জনপ্রিয় মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম হোয়াটসঅ্যাপে এত বড় গলদ রয়েছে জানতেন? হোয়াটসঅ্যাপের দাবি, তাদের নয়া ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা বা end-to-end encryption প্রযুক্তি প্রত্যেক ইউজারের চ্যাটকে সুরক্ষিত রাখে৷

যে পাঠাচ্ছে ও যাকে পাঠাচ্ছে- সেই দু’জন ছাড়া কোনও তৃতীয় ব্যক্তি ওই চ্যাট ‘ডি-কোড’ করতে পারে না৷ কিন্তু নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা সম্প্রতি হোয়াটসঅ্যাপের প্রাইভেসি সেটিংসে বড়সড় গলদ খুঁজে পেয়েছেন৷

অ্যাপল আইওএস সিকিউরিটি এক্সপার্ট জনাথন জিজিয়ারস্কি দাবি করেছেন, ডিলিট করলেও হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট কখনও পুরোপুরি মুছে যায়

না৷ অ্যাপলের লেটেস্ট ভার্সনের মডেলের উপর তিনি পরীক্ষা চালিয়েই তাঁর এই দাবি৷ তিনি আরও জানিয়েছেন, ডিলিটেড, ক্লিয়ার অল চ্যাট বা আর্কাইভড করলেও থেকে যায় চ্যাটের কথোপকথন৷

ফরেনসিক পরীক্ষায় সেই প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে৷ তাহলে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট মুছে ফেলার উপায় কী? জনাথন বলছেন, “ফোন থেকে হোয়াটসঅ্যাপ ‘আন-ইনস্টল’ করলে তবেই একমাত্র সমস্ত চ্যাট মুছে ফেলা সম্ভব৷” তবে হোয়াটসঅ্যাপ ইচ্ছা করে এই ডেটা সংরক্ষণ করে না, সে কথাও অবশ্য বলেছেন তিনি৷ হোয়াটসঅ্যাপের নীতি মোতাবেক, তারা কোনও ব্যক্তিগত ডেটা সংরক্ষণ করে রাখে না, স্পষ্ট করেছেন জনাথন৷

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, যে কোনও মুছে ফেলা চ্যাটের রেকর্ড ফরেনসিক পরীক্ষায় ফিরিয়ে আনা সম্ভব৷ শুধু হোয়াটসঅ্যাপ নয়, বাজারচলতি যে কোনও অ্যাপ যারা SQLite রেকর্ডস ব্যবহার করে তাদের সকলের ক্ষেত্রেই হার্ডডিস্ক থেকে মুছে ফেলা কথাবার্তা ফিরিয়ে আনা যায়৷

কারণ, SQLite আইওএস ডেটাবেসে শূন্যস্থান তৈরি করতে দেয় না৷ যখনই কোনও ডেটা ডিলিট করে দেওয়া হয়, সেটাকে ‘ফ্রি লিস্ট’-এ জুড়ে দেয় SQLite৷ তবে আপাতত এই সমস্যা শুধুমাত্র আইওএস-এই দেখা দিয়েছে৷ অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে এরকম কোনও সমস্যা নেই, বলছেন বিশেষজ্ঞরা।-সংবাদ প্রতিদিন






মন্তব্য চালু নেই