মেইন ম্যেনু

জামায়াতের হরতাল: ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি দায়িত্বে সরকারি দল’

মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় মীর কাসমে আলীর মৃত্যুদণ্ড আপিল বিভাগ বহাল রাখার প্রতিবাদে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ডাকা দেশব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে। তবে হরতালে যেন বিএনপি-জামায়াত-শিবির কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে সেই জন্য রাজধানীর বেশ কিছু মোড়ে মোড়ে আইনশৃঙ্খালা বাহিনীর পাশাপাশি দায়িত্ব পালন করছে সরকারি দলের বেশ কিছু নেতাকর্মীরাও। তাছাড়া রাজধানীর কয়েকটি স্থানে সরকারি দলের কর্মীদের শো-ডাউন দিতে দেখা গেছে।

হরতালের দিন রাজধানীর বেশ কিছু এলাকা ঘুরে এমমন দৃশ্য দেখা যায়। তবে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। হরতালে জন জীবনে কোন প্রভাবও পড়েনি। অধিকাংশ অফিস, ব্যাংক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। তারপরেও রাজধানীবাসীদের মনে কিছুটা হরতালের আতংক বিরাজ করছে। তবে কয়েকটি স্থানে বিচ্ছিন্ন ঘটনাও ঘটেছে।

এদিকে আজ দুপুর দুইটার দিকে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা রাজধানীর মগবাজার ওয়্যারলেসগেট এলাকায় একটি মিছিল করলে বাধা দেয় পুলিশ। তারপর জামায়ত-শিবিরের কর্মীদের সঙ্গে পুলশিরে ব্যাপক সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এক পথচারীসহ সাতজন আহত হয়ছেনে বলে জানা গেছে।

রাজধানীতে কর্মরত এক পুলিশ সদস্যর সাথে কথা হলে তিনি বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডটকমকে জানান, আমরা কোন দলের নই। শুধু দেশের শান্তি শৃঙ্খলার দায়িত্বে আছি। তাই হরতালে যেন কেউ অপ্রীতিকর বা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটাতে না পরে সেই জন্য রাজধানী জুড়ে নিরাপত্তাবাহিনীরা সর্তক অবস্থানে আছে। কারণ জনগণের জান মালের নিরাপত্তার দায়িত্ব আমাদের।

আরো এক কর্মকর্তা বলেন, দেশের কোন ক্ষতি হোন আমরা চাই না। কারণ আমাদের দেশে হরতাল মানে হলো জ্বালাও পোড়াও। তাই দেশের স্বার্থে আমরা সকাল থেকে রাত পযর্ন্ত ডিউটি পালন করতে হচ্ছে। মুগদা আইডিয়ালের সামনে পুলিশের পাশাপাশি দায়িত্ব পালন করছে সরকারি দলের কিছু কর্মী।

তাদের কয়েক জনের সাথে কথা বলে জানা যায়, বিএনপি-জামায়াত শিবির মিছিল করে এবং গাড়ি ভাংচুর করে দেশের সম্পদ নষ্ট করে। যেন এ সম্পদ তারা নষ্ট করতে না পারে সেই জন্য আইনশৃঙ্খলার পাশাপাশি আমারাও দায়িত্ব পালন করছি। উল্লেখ্য, একাত্তরে হত্যা-গণহত্যার দায়ে আলবদর বাহিনীর অন্যতম র্শীষনেতা মীর কাসমে আলীর ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রেকেছে সুপ্রীমকোর্ট আপিল বিভাগ।

চট্টগ্রাম অঞ্চলে মানবতাবিরোধী অপরাধের এই মূল হোতার বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে শহীদ কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দিনসহ ছয়জনকে হত্যা-গণহত্যার দায় (১১ নম্বর অভিযোগ) প্রমাণিত হওয়ায় তাকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাললে দেয়া সর্বোচ্চ দণ্ডাদেশ বহাল রেখেছেন আদালত।






মন্তব্য চালু নেই