মেইন ম্যেনু

জিকা ভাইরাস ছড়ানো মশা মারবে মাছ ও ব্যাঙ

জিকা ভাইরাসের আতঙ্কে কাঁপছে পুরো বিশ্ব। এর ‘ভেক্টর’ প্রতিরোধে নানা ধরনের পন্থা নেওয়া হচ্ছে। যার মধ্যে অধিকাংশই প্রকৃতিদত্ত অথবা জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং পদ্ধতিতে সৃষ্ট। এর লক্ষ্য হলো, মশার লার্ভা বা কীট বিনষ্ট করে মশা কমানো।

মশককীট খেকো মাছ: এল সালভাদর-এর সান দিয়েগো সৈকতে কিশোররা জাম্বো নামের এক ধরনের মোটা স্লিপার মাছ ধরে আনে। পরে জল রাখার পিপেয় এই জাম্বো মাছ ছেড়ে দিলে, সেই মাছ মশার লার্ভে বা কীটগুলোকে খেয়ে ফেলে। ‘এডিস এজিপ্টাই’ মশার কামড় থেকেই জিকা ভাইরাস ছড়ায়।

মশা দিয়ে মশা মারা: জিকা ভাইরাস মায়ের পেটের ভ্রুণে মাইক্রোসেফালি রোগের অবতারণা ঘটায়, যা থেকে নবজাতকের মস্তক ও মস্তিষ্কের বিকাশ স্বাভাবিকের তুলনায় ছোট হয়। নয়ত জিকা ভাইরাসের জ্বর প্রাণঘাতী নয়।

কলম্বিয়া আর ব্রাজিলেই জিকা ভাইরাসের প্রকোপ আপাতত সবচেয়ে বেশি। কলম্বিয়ার আন্তিয়োকিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা মশকদের মধ্যে ওলবাখিয়া নামের একটি জীবাণু ছড়ানোর চেষ্টা করছেন, যার ফলে এডিস মশা মানুষকে সংক্রমিত করতে পারবে না।

মশাখেকো ব্যাঙ: যেখানে বিপদ, সেখানেই ব্যবসাফাঁদার সুযোগ ও সম্ভাবনা৷ তাই আর্জেন্টিনায় সাত ডলার দরে ব্যাঙ বিক্রি হচ্ছে–সেই ব্যাঙ নাকি মশার বংশ ধ্বংস করে মানুষজনকে এডিস আর জিকার হাত থেকে বাঁচাবে। এ কাজে ব্যাঙ নাকি মশা তাড়ানোর ক্রিমের চেয়ে বেশি কার্যকর।

অরগ্যানিক কীটনাশক: ‘এডিস এজিপ্টাই’ মশা শুধু জিকা নয়, ডেঙ্গু রোগের ভাইরাস ও চিকুঙ্গুনিয়া জ্বরের ভাইরাসও বহন করে। এই মশার কীট ধ্বংসের জন্য পেরুতে কোকো, ইউকা, অ্যাসপারাগাস আর আলু মিশিয়ে একটি ‘বায়োলার্ভিসাইড’ বা অরগ্যানিক কীটনাশক তৈরি করা হচ্ছে।

তেজস্ক্রিয়তা দিয়ে মশার প্রজনন ক্ষমতা রোধ: ব্যাপারটা নিয়ে আপাতত পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলেছে। মূল ধারণাটা হলো, মশকদের উপর রশ্মি বিকিরণের ফলে পুরুষ মশারা নিষ্ফলা হয়ে পড়বে, কাজেই নারী মশারা ডিম পাড়তে পারবে না।

ধোঁয়া দিয়ে মশা তাড়ানো: এককালে গোয়ালঘরে যা করা হতো, জিকা-ডেঙ্গুর তাড়নায় সেই পুরনো পদ্ধতিই এখন সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, বিশেষ করে যখন অধিকাংশ দেশেই ডিডিটি ছড়ানো নিষিদ্ধ। মুশকিল এই যে, ধোঁয়া দিয়ে মশা তাড়ানো গেলেও, মশার ডিম ও কীট অক্ষত থেকে যায়।






মন্তব্য চালু নেই