মেইন ম্যেনু

জীবনে একবার ঘুরে আসতে পারেন এসব দ্বীপ

ভ্রমণ পিপাসু মানুষদের কাছে যদি জানতে চাওয়া হয় যে কোন ধরনের জায়গায় ঘুরতে বেশি ভালো লাগে। তাহলে হয়তো একটা উল্লেখযোগ্য সংখ্যাক মানুষ বলবে কোনো নির্জন সবুজ দ্বীপ বা কোনো সমুদ্রতীরের কথা। আসলে বাস্তব পৃথিবীর কর্মব্যস্ততা থেকে ছুটি নিয়ে দূরে কোথাও প্রিয়জনদের সাথে হারাতে মন চায় সবারই। আর এক্ষেত্রে সবুজ দ্বীপ বা সমুদ্রতীর হতে পারে সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত কোনো জায়গা। নিজেকে প্রকৃতির খুব কাছে নিয়ে প্রকৃতিতে পুরোপুরি বিলীন করে দেয়ার চেয়ে সুখের আর কী হতে পারে! ভাবতেই নিজেদের অজান্তেই আমাদের ভেতরটা কেমন যেন রোমাঞ্চিত হয়ে ওঠে। নগর সভ্যতার ইট, সিমেন্ট আর বালির দেয়াল ছেড়ে কয়েকদিনের জন্য হারিয়ে যেতে পারেন সবুজের প্রাচুর্য্যভরা নির্জনতায়। যেখানে আছড়ে পড়ছে ঢেউ। আর শঙ্খচীল আকাশে আর পানকৌড়ির নীল জলে মেলা বসায়। যেখানে আপনিও ঝাঁপিয়ে পড়তে পারেন নীল জলে। দেশ বিদেশের এমনই কয়েকটি সবুজ দ্বীপ আর সমুদ্রতীরের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেব আজ।

6

সেন্ট মার্টিন, বাংলাদেশ

এটি বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণে অবস্থিত একমাত্র প্রবাল দ্বীপ। এই দ্বীপের অপর নাম নারিকেল জিঞ্জিরা। এখানকার সামুদ্রিক মাছের শুটকি আর নারিকেল বিশ্বসেরা। পর্যটকদের জন্য কিছু হোটেল এবং রিসোর্টের ব্যবস্থা রয়েছে এখানে।

5

মধ্য আন্দামান, ভারত

১৫৩৬ বর্গমাইলের এই দ্বীপের স্থানীয় বাসিন্দারা বাঙালী এবং তামিল। আন্দামান দ্বীপপুঞ্জের সবচেয়ে দৃষ্টিনন্দন এই দ্বীপ। এখানে জারাওয়া আদিবাসীদের সঙ্গে সময়টা বেশ ভালোই কাটবে। ভারতের চেন্নাই থেকে সমুদ্রপথে পৌছা যায় এখানে।

4

কো তাও, থাইল্যান্ড

এই দ্বীপের সমুদ্র তীরে বসবাসকারী কো তাও কচ্ছ্পের নামানুসারে এর নামকরণ করা হয়েছে। সারি সারি নারিকেল গাছ আপনাকে বেশ শীতলতা দেবে। সাদা বালির সৈকত থেকে কিছু দূরে দূরে ছোট ছোট টিলা সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে। সমুদ্রপথে ট্রলারে যেতে হবে এখানে। বিশ্বজুড়ে পর্যটকদের অন্যতম পছন্দের দ্বীপ এটি।

3

বালি, ইন্দোনেশিয়া

স্বপ্নে কল্পরাজ্যে অবস্থান করার মত একটা অনুভূতির জন্ম দেবে এই দ্বীপ। ইন্দোনেশিয়ার স্বর্গ বলা হয় একে। এখানে প্রচুর বানর আছে। সমুদ্রতীরের খুব কাছেই উঁচু পাহাড়ে রয়েছে হাজার বছরের পুরোনো পাথরের মন্দির। একসঙ্গে সমুদ্রতীর, পাহাড় এবং দ্বীপে ঘুরে আসার আনন্দ পাওয়া যাবে এখানে। বাড়তি সুবিধা হিসেবে এখানে কয়েকদিন স্থানীয়দের কাছ থেকে ইয়োগা করা হয়ে যাবে আপনার।

2

মরিশাস

গ্রীষ্মমণ্ডলীয় নন্দনকানন হিসেবে খ্যাত এই দ্বীপ পৃথিবীর সব পর্যটকদের পছন্দের প্রথম সারিতে থাকে। এখানে প্রচুর পর্যটন হোটেল, রিসোর্ট রয়েছে। আবহাওয়া বেশ অনুকূলেই থাকে সারাবছর। এই দ্বীপের মন্ট চয়সিই পর্যটকদের অধিক আকর্ষণ করে। এখানে মাছ ধরা সহ সমুদ্রের ঢেউয়ে গা এলিয়ে দিয়ে নরম রোদ মাখতে পারবেন গায়ে।

1

মাওয়ি, যুক্তরাষ্ট্র

হাওয়াই দ্বীপের মাওয়ি প্রকৃতিপ্রেমীদের পছন্দের এক গন্তব্যের নাম। বাঁশবন ঘেরা এই দ্বীপ যেন নীরব স্বর্গ। এখানে ছোট পাহাড়ের টিলাগুলো যেন হাতছানি দিয়ে ডাকে। পাহাড়ের গায়ে গভীর বনের একেবারে ভিতরে রয়েছে কয়েকটি ঝরনা। সূর্যোদয় আর সূর্যাস্ত দেখে বালি হাসের উড়াওড়ি দেখে সময়টা বেশ কাটবে। মানুষকেও সব কিছু ভুলিয়ে দিতে এই দ্বীপের একটা জাদুকরী শক্তি আছে।






মন্তব্য চালু নেই