মেইন ম্যেনু

জুতোর গাছ, ডালে ডালে ঝুলছে জুতো!

ঝুলে আছে গাছের ডালে ডালে, শাখায় শাখায় হরেক রকমের জুতা। প্রথাগত কারণেই অজানা এক ধর্মবিশ্বাসের কারণে গাছের ডালে জুতা ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। হঠাৎ দেখে যে কেউ গাছটি জুতো গাছ বলেই ভুল করতে পারে।

গাছটির আসল নাম কটন উড ট্রি, তবে এখন আর এই নামে কেউ চেনে না। অধিকাংশ মানুষ চেনে জুতোর গাছ বলে। আমেরিকার নেভাদা রাজ্যের দুটি শহর এলি ও রেনোর মধ্যে সংযোগ স্থাপনকারী হাইওয়ে ধরে চলতে গেলে এই অদ্ভুত ধরনের গাছ মানুষের নজর কাড়বে।

আমেরিকার নেভাদা রাজ্যের দুটি শহর এলি ও রেনোর মধ্যে সংযোগ স্থাপনকারী হাইওয়ে ধরে চলতে গেলে এই অদ্ভুত ধরনের গাছ মানুষের নজর কাড়বে। গাছের ডালপালা জুড়ে এতো জুতা কেন? কীসের প্রতীক? বা কী উদ্দেশে এতে জুতা ঝোলানো হয়েছে। তা কারোই সঠিক ইতিহাস জানা নেই।

পর্যটকরা খুব কৌতূহল নিয়ে গাছটি দেখতে যায়। শোনা যায়, এক মহিলা কোনো এক বিশেষ কারণে গাছটিতে প্রথম জুতো ঝুলান। পরে অন্ধবিশ্বাসে অন্যরাও জুতো ঝোলানো শুরু করেন। সেই থেকে চলে আসছে জুতো ঝোলানো প্রথা। বর্তমানে গাছটির আসল নাম হারিয়ে জুতো গাছ হয়ে গেছে।

সাধারণত এই গাছগুলোর উচ্চতা ৭০ ফুটের মধ্যে হয়ে থাকে। এর ডালপালা অর্থাৎ শরীর জুড়ে রয়েছে জুতো আর জুতো। কোনো রকমের প্রতারণা বা টাকা রোজগারের উদ্দেশ্য ছাড়াই এক অজানা ধর্মবিশ্বাসে মানুষ বছরের পর বছর এই গাছে জুতো ঝুলিয়ে আসছে।






মন্তব্য চালু নেই