মেইন ম্যেনু

জেনে নিন ডায়াবেটিকস রোগীর খাবার যা হওয়া উচিত

এই সময়কার একটি সাধারণ সমস্যা ডায়াবেটিস। যার সাধারণ লক্ষণগুলো হলো ক্লান্তি, ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া, ওজন হ্রাস, অতিরিক্ত ক্ষুধা, মাথা ব্যথা, ঘাম, অস্বচ্ছ দৃষ্টি।

ডায়াবেটিকস রোগীদের নিয়মিত চিকিৎসার মধ্যে থাকতে হয়। তা না হলে স্থায়ী অন্ধত্ব, কিডনির রোগ, রক্তবাহ ক্ষতি, নার্ভের ক্ষতি, স্ট্রোক ও উচ্চ রক্তচাপের মতো নানা সমস্যা দেখা দেয়। এই রোগের কোনো রকম প্রতিকার নেই। শুধুমাত্র খাওয়ার মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণে রাখাই একমাত্র প্রতিকার। এই কারণে সঠিক খাদ্য নির্ণয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রক্তে সুগারের মাত্রা ঠিক রাখতে খাদ্য তালিকায় প্রচুর পরিমাণে সবজি রাখতে হবে।

ডায়াবেটিকস রোগীদের সবচেয়ে বড় সমস্যা দেখা দেয় চোখে। ল্যুটিনের সবচেয়ে ভালো উৎস হচ্ছে বাঁধাকপি। চোখের জন্য ভালো ক্যারোটিনয়েড যা বাঁধাকপিতে পাবেন। তাই প্রতিদিনের ডায়েটে বাঁধাকপি রাখতে চেষ্টা করুন।ক্যারোটিনয়েড ছাড়াও প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, ভিটামিন বি, আয়রন ও ক্যালসিয়াম পাবেন বাঁধাকপিতে।

ডায়াবেটিকস রোগীদের জন্য বাদাম উপকারী। কারণ বাদাম রক্তে সুগারের মাত্রা ঠিক রাখে এবং টাইপ ২ ডায়াবেটিকস ঠিক রাখে। শিমের বিচী ডায়াবেটিকস এবং হার্টের ঝুঁকি কমায় তাই খাদ্য তালিকায় রাখুন এগুলো। কিন্তু কিডনির ক্রিটিনিন বেড়ে গেলে বিচীজাতীয় খাবার খাওয়া যাবে না।

রক্তে সুগারের মাত্রা ঠিক রাখতে ডায়াবেটিকস রোগীরা ডায়েটে বার্লি যোগ করতে পারেন। এর ফাইবার ডায়াবেটিকসের মাত্রা ঠিক রাখে ও এতে থাকা স্বল্প পরিমাণ এলডিএল শরীরে ইনসুলিনের উন্নতি করে।

হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমানো ও ইনসুলিনের উন্নতি করে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড। সামুদ্রিক মাছ স্যামনে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড আছে। তাই যাদের ডায়াবেটিস আছে তারা প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এটি রাখার চেষ্টা করুন।






মন্তব্য চালু নেই