মেইন ম্যেনু

জেনে নিন বাসর ঘর সাজানোর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি টিপস

বিয়ের পরে নব দম্পতির একসঙ্গে কাটানো প্রথম রাত বা ফুলসজ্জা যে তাদের জীবন কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা মুখে বলে বোঝানো যায়না। বিয়ের সময় যাবতীয় পরিকল্পনা, কেনাকাটা ও বিয়ের বিভিন্ন কাজে শুধু যে পরিবারের লোকেরা যুক্ত থাকেন তা কিন্তু নয়, বিয়েতে বর বউকেও অনেক ঝক্কি পোহাতে হয়। এই কারণেই বর-বউয়ের প্রথম রাতে তাদের ঘরের সাজ সজ্জারও বিশেষ হওয়া প্রযোজন। এই কারণেই দম্পতির ভাই, বোন বন্ধুরা তাদের ফুলসজ্জার খাট সাজানোর পাশাপাশি মাথায় রাখুন কিছু উপায়।

১. বিয়ের প্রথম রাতে যাতে তাদের ঘরটিও সুন্দর হয়ে ওঠে সেই কারণে সাজসজ্জা শুরু করুন বিছানা থেকে৷ বিছানা ফুল দিয়ে সাজিয়ে তাতে ফুলের বুকে রেখে দিন৷ সঙ্গে একটি ফ্রেশ ওয়াইনের বোতল রেখেও নবদম্পতিকে সারপ্রাইজ দিতে পারেন৷ আপনি যদি আলাদা রকম কুছপ করতে চান তবে পুলের বদলে নেটের পর্দা ও সার্টিনের বেজশিট দিয়ে ছাট সাজাতে পারেন৷ খাট সাজানোর সময় খেয়াল রাখবেন যাতে নব দম্পতির কোনও অসুবিধা না হয়।

২. আপনি যদি নব দম্পতির ঘর একটু অন্য রকম ভাবে সাজাতে চান তবে কোনও বিশেষ থিম অনুযায়ী ঘর সাজাতে পারেন। যেহেতু এটি যেকোনও দম্পতির ক্ষেত্রে সবচেয়ে রোমান্টিক দিন সেই কারণেই এটিকে খুব রোম্যান্টিক ভাবেই সাজান উচিত। এই কারণে দেওয়ার রঙ কুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই কারণেই দেওয়ালে রঙ হিসেবে গোলাপী, ক্রিং ও পেস্তাকেই বেছে নিন। লাল বা বোগুনী রঙের একটি দেওয়ালও ঘরের শোভা বাড়িয়ে দিতে পারে। দেওয়ালের রঙ অনুযায়ী ঘরের পর্দা ও চাদরের রঙ নির্বাচন করুন।

৩. যেহেতু ফুলসজ্জা জীবনের একটি বিশেষ দিন সেই কারণেই এই দিনের সাজসজ্জায় কোনও খামতি রাখা একেবারেই উচিত নয়। এদিনের জন্য ছোট ছোট বিষয়গুলির উপরেও খেয়াল রাখা উচিত। যেমন এই দিন ঘরের আলো যেন খুব জোড়ালো না হয়। এদিনের জন্য ঘরটিকে অ্যারোমা ক্যান্ডেল দিয়েও সাজাতে পারেন৷ এতে ঘরের পরিবেশ এমনিতেই রোম্যান্টিক হয়ে উঠবে। বিছানায় সাধারণ বালিশের বদল হার্টের আকারের কুশন রাখুন। আর ফুলের ব্যবহারের সময় খেয়াল রাখবেন যাতে দম্পতিদের কারোর কোনও ফুলে যেন অ্যালার্জি না থাকে।

সুত্রঃ পিএনএস






মন্তব্য চালু নেই