মেইন ম্যেনু

জেনে নিন বৈদ্যুতিক শক লাগলে প্রাথমিক ভাবে যেগুলো করবেন

আমাদের দেশে প্রতিবছর বৈদ্যুতিক শকে অনেক মানুষ মারা যায়। অপরদিকে বৈদ্যুতিক শকে আক্রান্ত রোগীকে বাঁচানোও বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। তাহলে বৈদ্যুতিক শক বা তড়িতাহত হলে কি করণীয়। এক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তিকে কীভাবে চিকিৎসা দিতে হয়। জেনে নিন সেই সম্পর্কে কিছু পরামর্শ-

সতর্কতাঃ
১. ভেজা শরীরে বা হাতে বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি ধরা যাবে না।

২. ভেজা জায়গায় দাঁড়িয়ে বৈদ্যুতিক কাজ করা যাবে না।

৩. বৈদ্যুতিক কাজ করার সময় অবশ্যই রাবারের জুতা পরে নিতে হবে।

৪. প্রয়োজনে বিদ্যুতের মেইন সুইচ বন্ধ করে কাজ করতে হবে।

৫. ওষুধ সেবন ও ব্যবহারের ক্ষেত্রে রেজিষ্টার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

কেউ বিদ্যুতস্পৃষ্ট হলে করণীয়ঃ

১. বিদ্যুৎস্পৃষ্ট ব্যক্তির গায়ে হাত দেওয়া যাবে না।

২. বৈদ্যুতিক সুইচ সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ করে দিতে হবে।

৩. সুইচ বন্ধ করা সম্ভব না হলে, শুকনো খবরের কাগজ, উলের কাপড়, শুকনো কাঠের টুকরো অথবা রাবার দিয়ে বিদ্যুতস্পৃষ্ট ব্যক্তিকে বৈদ্যুতিক উৎস থেকে ধাক্কা দিয়ে আলাদা করতে হবে।

৪. ধাক্কা দেওয়া এবং সুইচ বন্ধ করা সম্ভব না হলে দ্রুত বিদ্যুত অফিসে খবর দিতে হবে।

৫. বিদ্যুতস্পৃষ্ট ব্যক্তির শ্বাস বন্ধ হয়ে গেলে কৃত্রিম শ্বাস দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে যতক্ষণ না তাকে হাস্পাতালে নেওয়া সম্ভব হয়।

৬. বিদ্যুতস্পৃষত ব্যাক্তির যদি হৃদপিণ্ড বন্ধ হয়ে যায় তবে তার বুকের ওপর জোতে চাপ দিতে হবে।

৭. বিদ্যুৎস্পৃষ্ট ব্যক্তির শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক থাকলেও তাকে অন্তত এক ঘণ্টা চুপ করে শুয়ে বিশ্রাম নিতে হবে।

৮. দ্রুত তাকে হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।






মন্তব্য চালু নেই