মেইন ম্যেনু

জেনে নিন, যাকাত সম্পর্কে আপনার অজানা কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর

যাকাত
প্রশ্নঃ ইসলামী অর্থ ব্যবস্থার মূল ভিত্তি কি?
উত্তরঃ যাকাত।

প্রশ্নঃ কি পরিমান সম্পদ থাকলে যাকাত দিতে হয়?
উত্তরঃ কমপক্ষে সাড়ে সাত তোলা সোনা অথবা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রৌপ্য অথবা এর সমপরিমান মূল্যের সম্পদ থাকলে যাকাত দিতে হয়।

প্রশ্নঃ সাহেবে নেসাব বলতে কি বুঝায়?
উত্তরঃ সাত তোলা সোনা বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রৌপ্য অথবা সমপরিমান সম্পদ যার কাছে থাকবে তিনিই সাহেবে নিসাব।

প্রশ্নঃ যাকাত কার ওপর ফরজ?
উত্তরঃ সাড়ে সাত তোলা স্বর্ণ বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রৌপ্য অথবা এর সমপরিমান অর্থ কে বলা হয় মালে নিসাব। কোন নারী বা পুরুষের যদি তার প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র, বাড়ী ও জায়গা-জমি ব্যতিত নেসাব পরিমান বা ততোধিক সম্পদ থাকে এবং উক্ত সম্পদ এক বছর অথবা বছরের শুরুতে এবং শেষে তার মালিকানাধিন থাকে, তাহলে এমন ব্যক্তির উপর বছরে একবার যাকাত আদায় করা ফরজ হবে।

প্রশ্নঃ যাকাতের হার কত?
উত্তরঃ শতকরা আড়াই টাকা (চল্লিশ ভাগের এক ভাগ)।

প্রশ্নঃ যাকাত ফরজ হওয়ার শর্তাবলী?
উত্তরঃ ১. মুসলমান হওয়া। ২. স্বাধীন হওয়া। ৩. বালেগ হওয়া। ৪. আকেল হওয়া। ৫. নিসাব পরিমান সম্পদ থাকা। ৬. পুর্ণাঙ্গ মালিক হওয়া। ৭. নেসাব পরিমাণ মাল নিজ প্রয়োজনীয় জিনিস থেকে অতিরিক্ত ও ঋণমুক্ত হওয়া। ৮. নেসাবের মালিক হওয়ার পর সেই মালের এক বছর অতিবাহিত হওয়া।

প্রশ্নঃ যাকাত ব্যয়ের খাত কয়টি ও কি কি?
উত্তরঃ বর্তমানে যাকাত খরচ করার স্থান ৪টি।
১. ফকির। অর্থাৎ এমন ব্যক্তি যার নিকট অল্প পরিমাণ জিনিসপত্র আছে কিন্তু নেসাব পরিমাণ নয়।
২. মিসকীন। অর্থাৎ এমন ব্যক্তি যার নিকট কিছুই নেই।
৩. ঋণগ্রস্থ। অর্থাৎ এমন ব্যক্তি যার দ্বায়িত্বে অপরের ঋণ রয়েছে এবং ঋণের অবিরিক্ত যে মাল আছে তা নেসাব পরিমাণ নহে
৪. মুসাফির। অর্থাৎ যে ব্যক্তি ভ্রমণাবস্থায় অর্থশূণ্য হয়ে গেছে তাকে তার প্রয়োজন অনুযায়ী যাকাত দেওয়া জায়েয আছে।

প্রশ্নঃ কারা যাকাত পাবে না?
উত্তরঃ ১. পিতা মাতা, দাদা-দাদী, নান-নানী, ও তাদের পিতা মাতা। ২. সন্তান, নাতি, নাতনি, প্রপৌত্র। ৩. স্বামী। ৪. স্ত্রী। ৫. বনি হাশেম। ৬. অমুসলীম। ৭. যাদের ভরন-পোষনের দায়িত্বশীল আছে। ৮. সাহেবে নিসাব। ৯. সাহেবে নিসাবের নাবালেগ সন্তান।

প্রশ্নঃ কোন কোন মালের যাকাত দিতে হবে?
উত্তরঃ ১. নগদ অর্থ। ২. পশু সম্পদ। ৩. সোনা-রৌপ্য। ৪. ব্যবসার পণ্য। ৫. ফল ফসল। ৬. খনিজ সম্পদ। ৭. মধু। ৮. গুপ্তধন। ৯. ব্যাংক ডিপোজিট ইত্যাদি ধরণের সম্পদের যাকাত দিতে হয়।

প্রশ্নঃ কোন মালের ওপর যাকাত ওয়াজিব হয় না?
উত্তরঃ ১. বসবাস করার ঘর। ২. পরিধেয় বস্ত্র। ৩. ঘরের আসবাব পত্র। ৪. আরোহনের প্রাণী। ৫. সেবার দাস। ৬. ব্যবহারিক অস্ত্র। ৭. ভাড়ায় দেয়া দ্রব্যাদি যেমন- বাড়ী, গাড়ী ইত্যাদি।

প্রশ্নঃ স্বর্ণের যাকাতের নিসাব কত?
উত্তরঃ বিশ মিসকাল বা সাড়ে সাত ভরি।

প্রশ্নঃ রৌপ্যের যাকাতের নিসাব কত?
উত্তরঃ রৌপ্যের যাকাতের নিসাব ২০০ দিরহাম বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রুপা।






মন্তব্য চালু নেই