মেইন ম্যেনু

জেনে নিন, স্কুল-কলেজের শিক্ষক নিয়োগের নতুন নিয়ম

এখন থেকে নতুন নিয়মে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে মর্মে পরিপত্র জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সেই সঙ্গে সংশোধন করা হয়েছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা গ্রহণ ও প্রত্যয়ন বিধিমালা, ২০০৬-এর।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগে অনুসরণীয় পদ্ধতিও বাতিল করা হয়েছে। নতুন এ নিয়মে বলা হয়েছে, স্কুল ও কলেজগুলো প্রতি বছর পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদন নিয়ে শিক্ষক নিয়োগের চাহিদাপত্র উপজেলা বা থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে পাঠাবেন। উপজেলা বা থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চাহিদা একত্র করে প্রতি বছর ৩১ অক্টোবরের মধ্যে একটি সমন্বিত চাহিদাপত্র পাঠাবেন জেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে।

আর জেলা শিক্ষা অফিসার ৩০ নভেম্বরের মধ্যে জেলার চাহিদাগুলো একীভূত করে একটি সমন্বিত চাহিদাপত্র পাঠাবেন বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) কাছে।

পরীক্ষা নেবে এনটিআরসিএ: প্রতিবছর নিবন্ধন বা প্রার্থী বাছাইসংক্রান্ত সব পরীক্ষা নেবে এনটিআরসিএ। চাহিদা অনুযায়ী পদ বা বিষয়ভিত্তিক জাতীয়, বিভাগ, জেলা ও উপজেলা বা থানাওয়ারি মেধাক্রম প্রণয়ন করে ফলাফল ঘোষণা করবে প্রতিষ্ঠানটি। শিক্ষক নিয়োগের জন্য ন্যূনতম দুই মাস আগে ম্যানেজিং কমিটি বা গভর্নিং বডির অনুমোদনক্রমে প্রতিষ্ঠানের জনবল কাঠামোতে সরকার নির্ধারিত কোটার প্রাপ্যতা উল্লেখ করে এনটিআরসিএতে অধিযাচনপত্র পাঠাবে প্রতিষ্ঠান প্রধান।

আবেদন অনলাইনে: অধিযাচনপত্রের (রিকুইজিশন) ভিত্তিতে এনটিআরসিএর ওয়েবসাইটে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রচার করবে এনটিআরসিএ। এরপর নিবন্ধিত প্রার্থীরা আবেদন করবেন অনলাইনে। আবেদনের পর চাহিদা ও মেধাক্রম অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠানো হবে প্রতিটি পদের বিপরীতে একজন করে প্রার্থীর নাম। সে অনুসারে ম্যানেজিং কমিটি এক মাসের মধ্যে নির্বাচিত প্রার্থী বরাবর নিয়োগপত্র জারি করবে। উপজেলার প্রার্থীরা

অগ্রাধিকার পাবেন: নিয়োগের বেলায় বা প্রার্থী নির্বাচনের সময় অগ্রাধিকার পাবে সংশ্লিষ্ট উপজেলার মেধাতালিকা। উপজেলায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে জেলা মেধাতালিকা এবং তাও না পাওয়া গেলে বিভাগীয় মেধাতালিকাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। বিভাগীয় মেধাতালিকা পর্যন্ত যোগ্য প্রার্থী না থাকলে জাতীয় মেধাতালিকা বিবেচনা করা হবে। তবে বিভাগীয় সদর এলাকায় অবস্থিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিয়োগের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন বিভাগের প্রার্থীরা। রাজধানী শহর হিসেবে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় অবস্থিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রে কোনো অগ্রাধিকার বিবেচনা করা হবে না। নিয়োগ দেওয়া হবে জাতীয় মেধাতালিকা অনুসারে।






মন্তব্য চালু নেই