মেইন ম্যেনু

জেনে রাখুন কলোরেক্টাল ক্যান্সারের রিস্ক ফ্যাক্টরগুলো

আপনি কি জানেন কলোরেক্টাল ক্যান্সার (CRC) পুরুষদের হওয়া তৃতীয় সবচেয়ে সাধারণ ক্যান্সার। কলোরেক্টাল ক্যান্সারের ৬,৬৩,০০০ টি কেস পাওয়া গেছে যা মোট ক্যান্সারের ১০.০%। এটি নারীদের মধ্যে দ্বিতীয় সাধারণ ক্যান্সার যা মোট ক্যান্সারের ৯.৪% (৫,৭০,০০০ টি কেস)। সাধারণত শরীরের বর্জ্য নিষ্কাশনের অভ্যাসের পরিবর্তন ও মলের সাথে রক্ত যাওয়ার লক্ষণের সাথে সম্পর্কিত কলোরেক্টাল ক্যান্সার। কলোরেক্টাল ক্যান্সারের ঝুঁকি বৃদ্ধিকারী বিষয়গুলোর সম্বন্ধে জানবো এই ফিচারে।

১। আলসারেটিভ কোলাইটিস

খুব বেশি মানুষ এটা জানেন না যে, আলসারেটিভ কোলাইটিস কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাব্য ঝুঁকি বৃদ্ধি করে। এর ব্যাপ্তি, সময়কাল ও কার্যকলাপই প্রাথমিক নির্ধারণকারী হিসেবে কাজ করে, যা দীর্ঘমেয়াদে কলোরেক্টাল ক্যান্সারের দিকে নিয়ে যায়। তাই আপনার যদি আলসারেটিভ কোলাইটিস থাকে তাহলে নিয়মিত স্ক্রিনিং এবং পরীক্ষার মাধ্যমে আপনার অবস্থা জানুন।

২। ইমিউনো-সাপ্রেসিভ ড্রাগস

হ্যাঁ যদি আপনি ইমিউনো-সাপ্রেসিভ ড্রাগস নিয়ে থাকেন তাহলে আপনার কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বহুলাংশে বৃদ্ধি পায়। অঙ্গ প্রতিস্থাপন বিশেষ করে কিডনি প্রতিস্থাপনের কারণে ইমিউনো-সাপ্রেসিভ ড্রাগস দীর্ঘদিন গ্রহণ করা হলে কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।

৩। ডায়াবেটিস

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে যে শুধু হৃদরোগ ও হাইপারটেনশন হওয়ার ঝুঁকিই বৃদ্ধি পায় তাই না কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার আশংকাও থাকে। যদি ইনসুলিনের রেজিস্টেন্সের কারণে টাইপ ২ ডায়াবেটিস হয় তাহলে ঝুঁকি আরো বৃদ্ধি পায়। তাই কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমানোর জন্য আপনার রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করুন।

৪। লাল মাংস

আপনি যদি সবজি পছন্দ না করেন তাহলে একটা কথা মনে রাখবেন যে, অধিক পরিমাণে লাল মাংস খেলে কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। তাই লাল মাংস খান পরিমিত পরিমাণে।

৫। অ্যালকোহল

এটা বলার অপেক্ষা রাখেনা যে অ্যালকোহল কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি করে। যদি অ্যালকোহল গ্রহণের অভ্যাস থাকে তাহলে তা বাদ দেয়ার চেষ্টা করুন।

৬। স্থূলতা

যদি আপনার ওজন অনেক বেশি হয় তাহলে আপনার কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেশি বৃদ্ধি পায়। নারী এবং পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই অধিক ওজন কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেয়।

এগুলো ছাড়াও আরো কিছু বিষয় কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি করে যেমন- ধূমপান, বয়স, জেন্ডার (নারীদের চেয়ে পুরুষের কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি ২৫% বেশি)।






মন্তব্য চালু নেই