মেইন ম্যেনু

জেলেদের হামলায় ভ্রাম্যমান ম্যাজিস্ট্রেট আহত

ভোলার লালমোহনে ইলিশ ধরতে বাধা দেওয়ায় মেঘনা নদীতে নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট বিপুল চন্দ্র দাসের উপর হামলা করেছে জেলেরা। মঙ্গলবার (৬অক্টোবর)সকাল ১১ টার দিকে লালমোহনের লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউনিয়নের মেঘনা নদীর সরকারের খাল এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলায় নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট আহত হয়েছে। তাকে লালমোহন সদর হাসপাতালে চিকিৎসার দেওয়া হয়েছে।ম্যাজিষ্ট্রেট বিপুল চন্দ্র দাস জানান, নিষিদ্ধ মা ইলিশ ধরা বন্ধ করতে মঙ্গলবার ভোর থেকে মেঘনা নদীতে অভিযানে নামেন।

এসময় তার সাথে মৎস্য অফিসের লোক ও ৪ জন পুলিশ ছিল। তারা মাঝ নদীতে মাছ ধরা অবস্থায় একটি জেলে নৌকাকে ধাওয়া করেন। ওই নৌকায় ৭ থেকে ৮ জন জেলে ছিল। ধাওয়া খেয়ে নৌকাটি সেখানকার সরকারের খাল ঘাটে এসে নৌকা রেখে লুকিয়ে পড়ে জেলেরা।

ম্যাজিষ্ট্রেট পুলিশকে নৌকাটি জব্দ করতে নির্দেশ দিলে পুলিশ নৌকা আটক করতে গেলে জেলে লোকমান মাঝি, কাশেম মাঝি, বাবুল মাঝি, ফজলে করিম মাঝির নেতৃত্বে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে প্রায় ২ শতাধিক লোকজন নিয়ে ম্যাজিষ্ট্রেটের ট্রলারে হামলা চালায়।

জেলেরা ম্যাজিষ্ট্রেটের ট্রলার লক্ষ করে ইট ও কাঁদা নিক্ষেপ করে। ইট ও কাঁদা নিক্ষেপের ফলে ম্যাজিষ্ট্রেট বিপুল চন্দ্র দাসের চোখে ও পায়ে আঘাত লাগে।

এসময় পুলিশ গুলি ছুড়তে চাইলে ম্যাজিষ্ট্রেট অনুমোতি দেননি।খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাকির হোসেন ও লালমোহন থানার অফিসার ইনচার্জ আক্তারুজ্জামান অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ম্যাজিষ্ট্রেটকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। তাকে লালমোহন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ভোলা জেলা প্রশাসক মোঃ সেলিম রেজা আহত ম্যাজিষ্ট্রেটকে দেখতে লালমোহন ছুটে আসেন। লালমোহন থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)আক্তারুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, হামলার ঘটনায় ম্যাজিষ্ট্রেটকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এব্যাপারে মৎস্য অফিসের আব্দুল মালেক বাদী হয়ে ২ জনকে চিহ্নিত আরো অজ্ঞাত নামা ৫০জনকে আসামী করে একটি মামলার দায়ের করা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই