মেইন ম্যেনু

টাকার জন্য রোগী ছাড়ছে না এনাম মেডিকেল

অগ্নিদগ্ধ এক যুবক চিকিৎসার বিল পরিশোধ করতে না পারায় তাকে হাসপাতালে আটকে রাখার অভিযোগ উঠেছে। সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ। ওই যুবকের নাম সেলিম মিয়া (২৫)। তিনি সাভারের ভাকুর্তা ইউনিয়নের মুশুরীখোলা এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে।

হাসপাতালের অন্য রোগীদের উচ্ছিষ্ট খাবার খেয়ে মানবেতর জীবন পার করছেন অগ্নিদগ্ধ সেলিম।

এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কথা হয় সেলিমের সঙ্গে। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি জানান, ৭ জুন সাভারের আমিনবাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে মতিঝিল যাওয়ার জন্য একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ওঠেন তিনি। অটোরিকশাটি আমিনবাজার ব্রিজের কাছে পৌঁছালে হঠাৎ গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়ে আগুন লেগে যায়। এ ঘটনায় ওই যুবকের হাত-পা ও শরীরের বেশ কিছু অংশ পুড়ে যাওয়ায় স্থানীয়রা তাকে দ্রুত উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পর অগ্নিদগ্ধ ওই যুবকের চিকিৎসা বাবদ ২৮ হাজার টাকার বিল দাবি করে কর্তৃপক্ষ। সেলিম অপারগতা প্রকাশ করলে ২৮ হাজার টাকা থেকে কমিয়ে ১০ হাজার টাকা দাবি করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সেলিমের পরিবারের সদস্যরা এ বিলও পরিশোধের সামর্থ্য না থাকায় হাসপাতালেই মানবেতর জীবনযাপন করছেন তিনি।

এ অবস্থায় হাসপাতালের বেডে সারাক্ষণ কেঁদে যাওয়া অগ্নিদগ্ধ ওই যুবক নিজেকে মুক্ত করতে গণমাধ্যমের সহায়তার পাশাপাশি সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তি ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাসপাতালের মালিক সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান বলেন, ‘এ রকম কোনো ঘটনা আমার জানা নেই।’

বিষয়টি সম্পর্কে তাকে বুঝিয়ে বলায় রাগান্বিত হয়ে তিনি বলেন, ‘আপনারা যা পারেন লিখতে থাকেন।’ দ্য রিপোর্ট






মন্তব্য চালু নেই