মেইন ম্যেনু

‘টাকা দিবি না তো তদন্ত করব কীভাবে’

খুলনা মহানগর পুলিশের (কেএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের এক উপপরিদর্শকের (এসআই) বিরুদ্ধে এক নারীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও চড়-থাপ্পড় মারার অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার দুপুর ২টার দিকে খুলনা প্রেসক্লাবে এসে ওই নারী সাংবাদিকদের কাছে এসব অভিযোগ করেন। অভিযুক্ত গোয়েন্দা পুলিশের ওই এসআইয়ের নাম শাহাজাহান কবির।

এ সময় শিউলি হাসান (৩৫) নামের ওই নারী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘এক বছর আগে আমার ভাই রাজুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। সেই মামলায় খালিশপুর থানা পুলিশের দেওয়া অভিযোগপত্রের বিরুদ্ধে না-রাজি দিলে আদালত পুনরায় তা তদন্ত করতে গোয়েন্দা পুলিশে স্থানান্তর করেন। ওই মামলায় সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য আজ শনিবার আমাকেসহ অন্য সাক্ষীদের ডাকেন এসআই শাহজাহান কবির।’

‘আমি নির্দিষ্ট সময়ের পাঁচ মিনিট পর সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য খালিশপুর গোয়েন্দা অফিসে হাজির হলে তদন্ত কর্মকর্তা শাহজাহান কবির আমাকে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করেন। এমনকি আমার বাবা-মায়ের সামনেই আমাকে চড়-থাপ্পড় মারেন। এ সময় এসআই শাহাজাহান কবির বলেন, টাকা দিবি না তো তদন্ত করব কীভাবে? আমি কি তোর ভাতার।’

শিউলি হাসান আরো বলেন, ‘গোয়েন্দা অফিসের সিসিটিভি ক্যামেরায় সব ধারণ করা আছে। আপনারা সেগুলি দেখেন।’

এ ব্যাপারে এসআই শাহজাহান কবিরের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ওই মহিলার মাথায় ছিট আছে। তাঁর কথা বিশ্বাস করবেন না। পাঁচ মিনিট পরে আসবে কথা বলে দেড় ঘণ্টা পরে এসেছে।’ এ সময় তিনি ওই নারীকে লাঞ্ছিত ও ঘুষ চাওয়ার কথা অভিযোগ অস্বীকার করেন। তবে তাঁর সঙ্গে মামলার তদন্ত নিয়ে তর্কবিতর্ক হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন এসআই শাহজাহান কবির। তিনি বিষয়টি নিয়ে কোনো সংবাদ না করারও অনুরোধ করেন।

এ বিষয়ে কেএমপির গোয়েন্দা বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার কামরুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযোগটি শুনেছি। ওই নারীকে আমি আমার দপ্তরে আসতে বলেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’






মন্তব্য চালু নেই