মেইন ম্যেনু

টানা বৃষ্টিতে কলারোয়ার জনজীবন ভোগান্তিতে

টানা বৃষ্টিতে স্থবির হয়ে পড়েছে সাতক্ষীরার কলারোয়ার জনজীবন। গত ২দিনের বৃষ্টির পর বৃহষ্পতিবার দিনভর মুষুলধরে বৃষ্টিতে রীতিমত বিপর্যস্ত হয়ে উঠেছে সাধারণ জনগোষ্ঠির। কালো মেঘে সকাল থেকেই সন্ধ্যা নেমে আসে পরিবেশে। যেন খেটে খাওয়া দিনমজুর থেকে শুরু করে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষদের স্বাভাবিক জীবযাত্রা বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। ঘরের বাইরে যাওয়া যেন কঠিন হয়ে পড়েছে। অন্যান্য প্রাণিকুলেরও অবস্থা একই।

উপজেলার বুকচিরে যাওয়া স্রোতহীন ‘বেত্রবতী’ নদীতেও পানি থৈ থৈ করছে। বেত্রবতীর উপচে পড়া পানিতে নদীপারের অনেক বাড়িঘরের আঙিনায় পানি উঠতে শুরু করেছে। কলারোয়া সরকারি কলেজ মাঠসহ উপজেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের আঙিনায় পানি জমে থাকতে দেখা গেছে। অনেক স্থানে ফসলি মাঠে পানি জমে যাওয়ার খবরও পাওয়া গিয়েছে। ফলে অনেকে আকাশ বন্যার আশংকায় শংকিত।

কলারোয়া পৌরসভাসহ উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের বড়বড় বাজার গুলোতে অপর্যাপ্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থা আর নিয়মিত ড্রেন পরিষ্কার না করার ফলে অল্প বৃষ্টিতেই যেখানে-সেখানে পানি জমে যাচ্ছে বলে ভূক্তভোগিরা জানান।

কলারোয়া-চান্দুড়িয়া, কলারোয়া-কেঁড়াগাছি, কলারোয়া-সরসকাটি, কলারোয়া-ধানদিয়া, কাজিরহাট-সিংগা-গয়ড়া, কাজিরহাট-খোর্দ সড়কসহ বিভিন্ন সড়কের নাজুক অবস্থা দীর্ঘদিন। এসকল ভাঙ্গাচূড়া ও ‘চটনা উঠা’ রাস্তায় অল্প বৃষ্টিতেই যানচলাচল অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। ফলে যাতায়াতেও চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন সাধারণ জনগোষ্ঠি।

আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে যেকোন কেনাকাটাতেও ধস নেমেছে বৃষ্টির কারণে। ক্রেতারা যেমন বাজারঘাটে যেতে হিমশিম খাচ্ছেন তেমনি বৃষ্টিতে বিক্রেতাদের মাঝেও অলসতা পরিলক্ষিত হয়েছে।

তবে এতো কিছুর পরেও টানা বৃষ্টিতে স্বস্তি ফিরেছে রোজাদারদের মাঝে। বৃষ্টিতে কিছুটা হলেও রোজাদাররা প্রশান্তিতে আছেন কয়েকদিন আগের গরমের কষ্ট থেকে।

সবমিলিয়ে টানা বৃষ্টি এইমুহুর্তে আশির্বাদ না অভিশাপ বা যাই হোক না কেন, মানুষ যে ভোগান্তিতে আছে সেটা অনেকের মুখে উঠে এসেছে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই