মেইন ম্যেনু

টান টান টেনশনে অরিনের অভিষেক

প্রচারেই প্রসার। তাই নতুন কোন ছবি মুক্তি পাওয়ার আগ মুহূর্তে নির্মাতা থেকে নায়িকা সবাইকে থাকতে হয় দৌড়ের উপর। এক চ্যানেলে অনুষ্ঠান শেষ হতে না হতেই আরেক চ্যানেলে দৌড়াতে হয়। এ কারণেই দুপুর থেকে বারবার ফোন করেও পাওয়া যাচ্ছিলো না নবাগত নায়িকা অরিনকে। কারণ শুক্রবার মুক্তি পাচ্ছে তার প্রথম চলচ্চিত্র ‘ছিন্নমূল’।

অবশেষে বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যার নামার আগ মুহূর্তে পাওয়া গেলো অরিনকে। হাঁপাতে হাঁপাতে বললেন, ‘শুক্রবার আমার প্রথম ছবি ছিন্নমূল মুক্তি পাচ্ছে তো, তাই সকাল থেকেই বিভিন্ন চ্যানেলে অনুষ্ঠানে অংশ নিতে হচ্ছে। এই মাত্র এসএ টিভি থেকে বের হলাম। সন্ধ্যায় আবার আরেকটি চ্যানেলে যেতে হবে।’

২০১০ সালে লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগীতার মাধ্যমে এ অঙ্গনে পা রাখেন এই উর্বসী। যদিও লেখাপড়ার ব্যস্ততার কারণে শুরুতে মিডিয়ায় তার উপস্থিতি ছিলো কম। তবে মডেলিং নিয়ে ঠিকই ব্যস্ত ছিলেন। এ প্রসঙ্গে অরিন বলেন, ‘আসলে মডেলিং এর প্রতিই সবচেয়ে বেশি টান অনুভব করতাম। এ কারণে লাক্সের পর কমবেশি যতটুকু সময় মিডিয়াতে দিয়েছি তার বেশির ভাগই ছিলো মডেলিং নিয়ে। তবে মাঝে মধ্যে নাটক কিংবা টেলিফিল্মেও কাজ করতাম।’

মডেলিং কিংবা ছোটপর্দায় যারা কাজ করেন, তাদের সবার স্বপ্নই যেন এক। বড়পর্দায় কাজের একটা সুযোগ পাল্টে দেয় তাদের সব। তবে চলচ্চিত্রে অভিনয়ের স্বপ্নটা অরিন একটু আগেই দেখেছিলেন। তার ভাষায়, ‘শুরু থেকেই ভাবতাম, চলচ্চিত্রে কাজ করব। তবে এ জন্য ভাগ্যও লাগে। আমি হয় তো ভাগ্যবান, যে কারণে ক্যারিয়ারের শুরুতেই কাজী হায়াতের মতো পরিচালকের ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছি।’

বলে রাখা ভালো, ‘ছিন্নমূল’ কাজী হায়াতের পরিচালনায় ৫০তম ছবি। এতে অরিনের বিপরীতে অভিনয় করেছেন কাজী মারুফ। শুক্রবার দেশের প্রায় ষাটটি প্রেক্ষাগৃহে ছবিটি একযোগে মুক্তি পাচ্ছে। ক্যারিয়ারের প্রথম চলচ্চিত্রটি যখন এতগুলো প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছ, তখন স্বাভাবিক ভাবেই নবাগত নায়িকা অরিন একটু উদ্বিগ্ন থাকবেন। তার মতে, ‘সবার মতো আমিও প্রথম ছবি নিয়ে উদ্বিগ্ন। মনে হচ্ছে শুক্রবার আমার এসএসসি বা এইচএসসি পরীক্ষার ফল বের হবে। টান টান উত্তেজনায় আছি। সবচেয়ে বড় দুঃশ্চিন্তা হলো, বড়পর্দায় নিজেকে কেমন দেখাবে তা নিয়ে।’

‘ছিন্নমূল’ ছবিতে একজন বার ড্যান্সারের চরিত্রে দেখা মিলবে অরিনের। আর দশটা সাধারণ মেয়ের মতো যে বেড়ে উঠেছে, সে কি করে এমন চরিত্র পর্দায় ফুটিয়ে তুলবে জানতে চাইলে অরিন বলেন, ‘আসলে চরিত্রটা করার আগে আমি প্রচুর স্টাডি করেছি। তাছাড়া একজন বার ড্যান্সার হতে হলে নাচ জানা প্রয়োজন। এজন্য ছবির শুটিং শুরুর আগে টানা তিনমাস নাচ শিখেছি। চরিত্রটি যথার্থ করার জন্য আমার চেষ্টার কমতি ছিলো না। আশা করছি দর্শকের তা ভালো লাগবে।’

চলচ্চিত্রের সঙ্গে অরিনের সর্ম্পক খুব বেশি দিনের না হলেও, ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি ছবিতে নাম লিখিয়েছেন। এর মধ্যে ‘বিধ্বস্ত’ ছবির অর্ধেক শুটিংও করেছেন। আর ‘অসম প্রেম’ ছবির গানের কাজ শেষ করেছেন। এ দুটির বাইরে ‘রাত ১২টার পরে’, ‘এ বুকে অনেক জ্বালা’, ‘আমার সিদ্ধান্ত’ এবং ‘ভয়ংকর গোলমাল’ মতো তারকা বহুল ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। ক্যারিয়ারের শুরুতেই এতগুলো ছবিতে কাজ করা প্রসঙ্গে অরিন বলেন, ‘আমি আসলে সব ধরনের ছবিতে কাজ করতে চাই। হাতে সাতটি ছবির কাজ রয়েছে। এগুলো সবই বাণিজ্যিক ধারার ছবি। আশা করছি দর্শক ভালো ভাবেই আমাকে গ্রহণ করবে।’

সুন্দরী প্রতিযোগীতার মাধ্যমে মিডিয়া প্রবেশ। তারপর মডেলিং থেকে নাটক। সবশেষ চলচ্চিত্রে পর্দাপন। এরপর অরিনের গন্তব্য জানতে চাইলে তিনি হাসতে হাসতে বলেন, ‘কৌতূহল থেকে মডেলিং এ এসেছিলাম। ছোটপর্দায়ও খুব বেশি কাজ করা হয়নি। আর এখন বড়পর্দায় কাজ করছি। সবমিলিয়ে বলতে পারি, আমি একজন শিল্পী হতে চাই। সব মাধ্যমেই শেখার অনেক কিছু আছে। সেগুলো শিখতে চাই।’






মন্তব্য চালু নেই