মেইন ম্যেনু

টাম্পাকো কারখানা পরিদর্শনে সেনাবাহিনী

টঙ্গীর বিসিক শিল্প নগরীর টাম্পাকো ফয়েলস কারখানার আগুন দুই দিনেও নিভেনি। বাহির থেকে আগুন দেখা না গেলেও ধ্বংসস্তূপের ভেতর থেকে ধোঁয়া বেরুচ্ছে এখনো। ধারণা করা হচ্ছে এখনো ভেতরে অনেক কেমিকেল পদার্থের স্তুপ রয়েছে। গতকাল ২৫টি লাশ উদ্ধার করা হয়। আজ ধ্বংসস্তূপের ভেতর থেকে আরও চারটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার অভিযান পরিদর্শন এবং পরিস্থিতি পরখ করতে রবিবার রাত নয়টার দিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সেনাবাহিনীর একটি টিম।

লে. কর্নেল শফিউল আজমের নেতৃত্বে টিমটি ঘটনাস্থলে এসে হাজির হনে এবং পরিস্থিতি সরজমিন পরিদর্শন করেন। তারা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ ফায়ার সার্ভিসের পদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত আসাদুর রহমান কিরনও উপস্থিতি ছিলেন। এর আগে স্থানীয় এমপি রাসেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও সেনাকর্মকর্তাদের ঘটনাস্থল পরিদর্শনের সময় তিনি সেখানে ছিলেন না। বৈঠক শেষে ভারপ্রাপ্ত মেয়র সাংবাদিকদের বলেন, সেনা কর্মকর্তারা অগ্নি বিধ্বস্ত কারখানাটি পরিদর্শন করে গেছেন। আগামীকাল সকাল থেকে তারা উদ্ধার অভিযানে অংশ নিতে পারেন। এছাড়া ঘটনাস্থলে সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে একটা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলার সিদ্ধান্ত হয়। সেখানে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রতিনিধিরা থাকবেন। ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা রাতে সাংবাদিকদের বলেন, আগুন নিভে গেলেও ভেতরে অনেক কেমিকেল পদার্থ রয়ে গেছে। সেখান থেকে প্রতিনিয়ত কালো ধোঁয়া বের হচ্ছে। তবে বাহির থেকে আগুন দেখা যাচ্ছে না।

ধ্বংসস্তূপের ভেতর থেকে রবিবার প্রথমে ছয়টি লাশ উদ্ধার করার কথা বলা হলেও ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক লে. কর্নেল মোশাররফ হোসেন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আসলে মরদেহ ছয় জনের নয়, চার জনের। রাত পোনে আটটার দিকে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সামনে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, লাশগুলো বিকৃত ও অংশ বিশেষ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় এই ভুলবুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে তিনি স্বীকার করেন। তিনি বলেন, পরে আমরা যাচাই বাছাই শেষে আমাদের ভুল বুঝতে পারি।

লাশগুলো ফুলে গিয়েছিল। উদ্ধারের পরপরই লাশগুলো নেয়া হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এখনো নয় জন নিখোঁজ রয়েছে বলে জেলা প্র্রশাসনের পক্ষে থেকে বলা হয়েছে। তবে যে চার জনের লাশ পাওয়া গেছে তারা ঔ নিখোঁজ তালিকায় রয়েছে কি না তা জানা যায়নি।

তবে এ নিয়ে জনমনে একটা বিভ্রান্তি রয়েছে।

শনিবার সকালে অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল প্যাকেজিং কারখানা টাম্পাকোতে বিস্ফোরণের পর আগুন লাগে। এতে ২৯ জন নিহত হয়। এর মধ্যে গতকাল ২৫ জনের কথা জানা যায়। আজ আরও চার জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই