মেইন ম্যেনু

টার্গেট শিশু: নির্যাতনের পরে থানায় বসে সমঝোতা !

ব্যুরো প্রধান, রাজশাহী : টার্গেট শিশু। থামছে না শিশু নির্যাতন। আমাদের সমাজে বিভিন্ন অযুহাতে নানা ভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে শিশুদের। প্রতিদিন টেলিভিশন চ্যানেল ও খবরের কাগজ খুল্লেই দেখা যায় দেশের কোথাও না কোথাও বিভিন্ন ভাবে শিশু নির্যাতন হয়েছে। এসব ঘটনার মধ্যে চোরের অভিযোগে বেশি নির্যাতন করা হচ্ছে। গত কিছুদিন আগে রাজশাহীর পবায় চুরির অভিযোগে দুই শিশুকে এলাকার বেশ কয়েকজন মিলে মারধর করে। পরে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

গত শনিবার সন্ধ্যায় রাজশাহীর বাঘা উপজেলার মনিগ্রাম বাজারে নাহিদ হোসেন (১২) নামের এক শিশুকে চোর সন্দেহে নির্যাতনের পর থানায় বসে সমঝোতা করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মনিগ্রাম বাজারের মুদি দোকানদার মাজদার রহমান ও ওষধ ব্যবসায়ী ফিরোজ আলীর দোকানের সামনে একটি সাইকেল রেখে দাড়িয়ে ছিলো জোননশী গ্রামের মৃত আলতাব হোসেনের ছেলে নাহিদ। দোকানের সামনে নাহিদ দাঁড়িয়ে থাকায় ফিরোজ হোসেন তাকে চোর সন্দেহে চড়-থাপ্পড় মারেন। এসময় পাশের দোকানদার মাজদার রহমানও কোনো কথা না বলে শিশুটিকে মারধর করেন। স্থানীয় লোকজন শিশুটিকে উদ্ধার করে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। এরপর শিশু নাহিদ অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং তার গাল-মুখ ফুলে যায়।

এদিকে খবর পেয়ে বাঘা থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুর রাজ্জাক রাত ৮টার দিকে মনিগ্রাম বাজারে যায় এবং ওই দুই ব্যবাসায়ীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনার এক পর্যায়ে নাহিদ ও তার মা থানায় আসে। পরে বাজার কমিটির সম্পাদক সম্পাদক জিল্লুর রহমান, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা কাওসার রহমান, স্বপন সরকারসহ থানায় একটি শালিস বৈঠকের আয়োজন করে। এতে দুই ব্যবসায়ীর ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করে সমঝোতা করা হয়।

বাজার কমিটির সম্পাদক সম্পাদক জিল্লুর রহমান বলেন, দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা করে শিশু নাহিদের চিকিৎসা বাবদ ১৫ হাজার টাকা আদায় করে বিষয়টি সমঝোতা করে দেয়া হয়েছে।
নাহিদের মা নাদিরা বেগম বলেন, সন্তানের বাবা মারা গেছে। আমরা গরিব মানুষ। আমার ছেলেকে মারার বিষয়ে ওসি স্যার ও বাজারের ব্যবসায়ীরা সমঝোতা করে দিয়েছে।

এ বিষয়ে বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলী মাহামুদ বলেন, স্থানীয় লোকজনসহ বাজার কমিটির নেতাদের অনুরোধে থানায় বসে আপোশ করা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই