মেইন ম্যেনু

টি-টোয়েন্টিতেও হারে শুরু বাংলাদেশের

ওয়ানডে সিরিজে হারের পর অধিনায়ক থেকে শুরু করে দলের সবার কথায়ই ছিল টি-টোয়েন্টি সিরিজে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয়। আর এই প্রত্যয় নিয়েই সিরিজের প্রথম ম্যাচে মাঠে নেমেছিল টাইগাররা। তবে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার দিনে জ্বলে উঠতে পারলেন না বোলাররাও। আর এতেই হার দিয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হলো বাংলাদেশের।

টাইগারদের দেওয়া ১৪২ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে কিউই ব্যাটসম্যান ব্রুম এবং উইলিয়ামসন শুরুটা ভালো করলেও তৃতীয় ওভারের শুরুতে রুবেল হোসেনের বলে সাকিব আল হাসানের দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরেন নিল ব্রুম (৬)। ডিপ স্কয়ার লেগে বল ধরে দড়ি পার হওয়ার আগ মুহূর্তে মাঠের ভেতর দিকে ছোড়েন সাকিব। পরে সামনে ঝাঁপিয়ে দুই হাতে ক্যাচ তালুবন্দি করেন দলের সহ-অধিনায়ক।

চতুর্থ ওভারে বোলিংয়ে এসে নিজের দ্বিতীয় বলেই আঘাত হানেন মোস্তাফিজুর রহমান। তরুণ এই বাঁহাতি পেসারের বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে উইকেটরক্ষক নুরুল হাসানকে ক্যাচ দেন কলিন মানরো (২ বলে ০)। দলীয় ৪৬ রানে ৭ম ওভারের শুরুতে অ্যান্ডারসনকে ফেরান সাকিব।ব্যক্তিগত ১৩ রান করে তামিমের তালুবন্দি হন তিনি। সাকিবের বলে তামিম ইকবালের হাতে ক্যাচ দিয়ে ব্যক্তিগত ১৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন অ্যান্ডারসন।

এরপর দারুণ ফিল্ডিংয়ে রান আউট হয়ে ফিরেন অভিষিক্ত টম ব্রুস। মাশরাফির বলে এক রান নেওয়ার পর দ্বিতীয় রান নিতে গিয়ে একটু এগিয়ে যাওয়া ব্রুস আর ফিরতে পারেনি। সৌম্য সরকারের থ্রো পেয়েই স্টাম্প ভেঙে দেন মাশরাফি। টপঅর্ডারের চারজন ব্যাটসম্যান ফিরে গেলেও ওপেনিংয়ে নেমে একপ্রান্ত আগলে রেখে জয় এনে দেয় কেন উইলিয়ামসন। কিউই অধিনায়ক উইলিয়ামসনের অপরাজিত ৭৩ রানের ব্যাটিং তান্ডবে ১৮ ওভারেই জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় নিউজিল্যান্ড। উইলিয়ামসন ৫৫ বলে দুই ছক্কা ও ৫ চারের সাহায্যে খেলেন ৭৩ রানের অপরাজিত ইনিংস। আর গ্র্যান্ডহোম ৪১ রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে ওয়ানডে সিরিজের হারের পর টি-টোয়েন্টি তে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় নিয়ে নেপিয়ারের ম্যাকলিন পার্কে টস জিতে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। তবে শুরুটা ভালো হয়নি টাইগারদের। ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারেই ভাঙে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি। ম্যাট হেনরির অফ স্টাম্পের বাইরের বলে ব্যক্তিগত ০ রানে উইকেটরক্ষক লুক রনকিকে সহজ ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে গেছেন ইমরুল কায়েস।আর ইনিংসের পঞ্চম ওভারে অভিষিক্ত বেন হুইলারের শর্ট বলে হুক করতে গিয়ে সীমানায় সহজ ক্যাচ দেন ছন্দে থাকা বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল (১১)।

তামিমের বিদায়ের পর খুব বেশি সময় উইকেটে থাকতে পারেননি সাব্বির। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষিক্ত বোলার লকি ফার্গুসনের ফুলটস বলে মিডউইকেটে ম্যাট হেনরিকে সহজ ক্যাচ দেন সাব্বির (১৬)। পরের বলেই গালিতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান সৌম্য। তবে মাহামুদুল্লাহকে নিয়ে ভালোই শুরু করেছিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। মাহামুদউল্লাহকে নিয়ে গড়ে তুলেন ৩৭ রানের পার্টনারশিপ। কিন্তু ১২ তম ওভারে ব্যক্তিগত ১৪ রানে গ্র্যান্ডহোমের বলে সান্টনার এর তালুবন্দি হন তিনি।

এরপর মোসাদ্দেককে সঙ্গে নিয়ে ৩২ রানের জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহ। তবে মিচেল স্যান্টনার বলে ব্যক্তিগত ২০ রান করে অ্যান্ডারসনকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে যান মোসাদ্দেক। রানের গতি বাড়াতে সোহানের আগে উইকেটে আসেন মাশরাফি। তবে ব্যক্তিগত ১ রান করে হুইলারের বলে গ্র্যান্ডহোমের কাছে ক্যাচ দেন টাইগার এই অধিনায়ক।

মাশরাফির বিদায়ের পর ওয়ানডে সিরিজ বাজে কাটানো মাহমুদউল্লাহ এক প্রান্ত ধরে রেখে দারুণ এক অর্ধশতক তুলে নেন। ৪৫ বলে ক্যারিয়ারের তৃতীয় অর্ধশতক স্পর্শ করার পর বেশিক্ষণ টিকেননি এই মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান। ফার্গুসনের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে ৫২ রান করেন দেশ সেরা এই তারকা। আর শেষ দিকে সোহান ৬ বলে ৭ রান করলে ১৪১ রানের সংগ্রহ পায় টাইগাররা। কিউইদের হয়ে অভিষিক্ত লকি ফার্গুসন নেন ৩ উইকেট।






মন্তব্য চালু নেই