মেইন ম্যেনু

টুথপেস্টের নানাবিধ ব্যবহার

দাঁত পরিষ্কার রাখতে আমরা টুথপেস্ট ব্যবহার করি। এটি দাঁত পরিষ্কার করার পাশাপাশি দাঁতকে রাখে জীবাণুমুক্ত, দাঁতের ক্ষয় রোধ করে এবং দেয় সতেজ নিঃশ্বাস। টুথপেস্ট ব্যবহারের প্রধান এই দিক গুলোর পাশাপাশি এর অন্যান্য কিছু উপকারি দিকও রয়েছে। চলুন জেনে নিই টুথপেস্টের আরো কিছু ব্যবহার-

কাপড়ের দাগ তুলতে
কাপড়ে কলমের দাগ, জং এর দাগ কিংবা অন্য কোন কঠিন দাগ তুলতে সহায়তা করবে টুথপেস্ট। কাপড়ে দাগের জায়গায় আঙুল কিংবা টুথব্রাশ দিয়ে টুথপেস্টের(নন জেল) প্রলেপ দিয়ে দিন। ১-২ ঘণ্টা পরে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন দাগ নেই। তবে দাগটি বেশ পুরনো হলে, সেক্ষেত্রে প্রক্রিয়াটি পুনরাবৃত্তি করতে পারেন।

ত্বকের ব্রণ দূর করতে :
রাতে ঘুমোতে যাবার আগে ব্রনের স্থানে আঙুলের পিঠ দিয়ে আলতো করে টুথপেস্টের প্রলেপ দিন।পরের দিন সকালে ঘুম থেকে উঠে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ব্রণ অনেকটাই নেই। টুথপেস্টে উপস্থিত উপাদান ব্রণের জীবাণু নিবিষ্ট করতে সখম। তবে সূক্ষ্ম ত্বকে এটি ব্যবহার না করাই উত্তম।

পোড়া ক্ষত কিংবা পোকার কামড় :
শরীরের কোনো অংশ পুড়ে গেলে তৎক্ষণাৎ প্রাথমিক চিকিৎসা হিসেবে টুথপেস্ট ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে করে পোড়ার কারণে সৃষ্ট জ্বালাপড়া অনেকটা কমে যাবে। তবে বেশি গুরুতর ভাবে পুড়ে গেলে, সেক্ষেত্রে তৎক্ষণাৎ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। পাশাপাশি পোকামাকড় কামড় দিলে প্রাথমিক চিকিৎসা হিসেবেও এটি ব্যাবহার করা যেতে পারে। টুথপেস্টে জীবাণু ধংসকারী উপাদান রয়েছে, যা ক্ষুদ্র পোকামাকড়ের কামড়ের জীবাণু ধংস করতে সক্ষম।

হাতের নখ উজ্জ্বল,পরিষ্কার ও শক্তিশালী করতে :
হাতের নখকে উজ্জ্বল,পরিষ্কার ও শক্তিশালী করতে ব্যবহার করা যায় টুথপেস্ট। সেক্ষেত্রে একটি টুথব্রাশ কিংবা পাতলা কাপড়ের সাহায্যে হাতের নখে টুথপেস্টের প্রলেপ দিতে হবে। কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেলুন। আপনার নখ হয়ে উঠবে উজ্জ্বল,পরিষ্কার এবং শক্তিশালী।

হাতের দুর্গন্ধ দূর করতে :
মেয়েদের রান্নার পরে মাছ-মাংস কিংবা পেয়াজ-রসুনের তীব্র গন্ধ দূর করতে সাবানের চেয়ে টুথপেস্ট বেশী কার্যকর। সেক্ষেত্রে হাতের তালুতে টুথপেস্ট নিয়ে সাবানের মতো করেই ব্যবহার করতে হবে। তাছাড়া যাদের হাতের তালু ঘামায়, তারাও একইভাবে হাত ধুতে পারেন। এতে করে আপনার হাত রবে দুর্গন্ধমুক্ত।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই