মেইন ম্যেনু

টেন্ডুলকারের পর কোহলি

আট বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে টেস্ট ও ওয়ানডে মিলিয়ে ইতিমধ্যেই তার নামের পাশে শোভা পাচ্ছে ৩৬টি সেঞ্চুরি। কিন্তু আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি তো দূরে থাক, ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতেও সেঞ্চুরি পাচ্ছিলেন না বিরাট কোহলি। একবার তো আউট হন ৯৯ রানে!

অবশেষে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত এই ফরম্যাটে সেঞ্চুরি পেলেন কোহলি। আইপিএলে রোববার ৬৩ বলে ঠিক ১০০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন তিনি। তবে এ সেঞ্চুরি কাজে লাগেনি, গুজরাট লায়ন্সের কাছে তার দল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু হেরেছে ৬ উইকেটে।

সেঞ্চুরি করার পরও দল হেরে যাওয়া আইপিএল ইতিহাসের দ্বিতীয় অধিনায়ক কোহলি। প্রথমজন শচীন টেন্ডুলকার। এই কিংবদন্তি ক্রিকেটারও কোহলির মতো ঠিক ১০০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেছিলেন। ২০১১ আইপিএলে কচি তাস্কার্স কেরালার বিপক্ষে ৬৬ বলে এই রান করেছিলেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স অধিনায়ক। তার দল হেরে গিয়েছিল ৮ উইকেটে।

মজার বিষয়, রোববার ছিল টেন্ডুলকারের ৪৩তম জন্মদিন। আর সেই দিনেই তার একটি ‘কীর্তি’র পাশে নিজের নাম লেখালেন কোহলি!

এ বছর সব ধরনের ক্রিকেট মিলিয়ে ৩টি সেঞ্চুরি করেছেন কোহলি। আর তিনটি ম্যাচেই হেরেছে তার দল!

রোববার কোহলির সেঞ্চুরিটি এসেছে অবশ্য দারুণভাবে। ইনিংসের বাকি তখন ৩ বল, কোহলি অপরাজিত ৮৬ রানে। ডোয়াইন ব্রাভোর চতুর্থ বলে ছক্কা মেরে পৌঁছে যান ৯২-এ। পরের বলে চার মেরে ৯৬। ব্রাভোর শেষ বলেও আরেকটি চার, ১০০!

শেষ তিন বলে ১৪ রান করে কোহলি পেলেন টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি। কিন্তু সেঞ্চুরিটা যে জয় দিয়ে রাঙিয়ে রাখতে পারলেন না!






মন্তব্য চালু নেই