মেইন ম্যেনু

টেলিভিশন-মোবাইল-ওয়্যারলেসের মাধ্যমে মোনাজাত

ইজতেমা ময়দানের বাইরে পর্যাপ্ত মাইকের সংযোগ ব্যবস্থার অভাবে বহু ধর্মপ্রাণ মুসলমান বয়ান শুনতে এবং সময়মতো আখেরি মোনাজাতে শামিল হতে দারুণ অসুবিধা ও বিভ্রান্তিতে পড়েন। নারীদের জন্য কোনো ধরনের আয়োজন ছিল না ইজতেমা মাঠে। তবু দলে দলে নারী এসেছেন দূরদূরান্ত থেকে আখেরি মোনাজাতের আগ পর্যন্ত। ইজতেমাস্থলেও আশপাশের বহুসংখ্যক নারী আখেরি মোনাজাতে শামিল হন।

এছাড়া গাড়ির অভাবে যারা ইজতেমাস্থলে আসতে পারেনি তারা মোবাইল ফোন ও ওয়্যারলেস সেটের মাধ্যমে মোনাজাতে শরিক হন। ইজতেমা মাঠে না এসেও মোনাজাতের সময় হাত তুলেছেন অসংখ্য মানুষ। গাজীপুরের চন্দনা চৌরাস্তা মসজিদ মাঠসহ বিভিন্ন এলাকায় ওয়্যালেস সেটে, মুঠোফোনেরও মাধ্যমে মোনাজাত প্রচার করা হয়। এসব স্থানে নারীদের ব্যাপক উপস্থিতি ছিল। আবার টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে সরাসরি সম্প্রচার করার কারণে অনেকে বাসায় বসেও মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন।

মোনাজাতে প্রধানমন্ত্রীর অংশগ্রহণ
মুসলমানদের দ্বিতীয় ৫০তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বেলা ১১টায় মোনাজাত শুরু করেন তাবলীগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বি ও দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ সা’দ। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মোনাজাতে অংশ নেন বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা ও প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি এবং প্রধানমন্ত্রী পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা।

আল্লাহর দরবারে হাত তুলেছেন খালেদা জিয়া
রাজধানীর গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’ থেকেই বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রোববার টঙ্গীর তুরাগ তীরের ইজতেমা ময়দানে আখেরি মোনাজাত শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাসা থেকে খালেদা জিয়াও এতে শরিক হন। বিষয়টি বাংলামেইলকে নিশ্চিত করেছেন বিএনপির মিডিয়া উইংয়ের কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান।

তিনি বলেন, ‘বিগত কয়েক বছর ধরে টঙ্গীর ঐতিহাসিক বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে গিয়ে মোনাজাতে অংশ নিতেন খালেদা জিয়া। কিন্তু গত বছর রাজনৈতিক পরিবেশ অনুকূলে না থাকায় আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে তিনি ইজতেমায় যাননি। ওই সময় তার রাজনৈতিক কার্যালয়ে বসেই মোনাজাতে অংশ নেন খালেদা জিয়া। এবার সে ধরনের কোনো পরিস্থিতি না থাকলেও বাসায় বসেই দোয়ায় অংশ নিয়েছেন।’

মোনাজাতে ভিআইপিদের অংশগ্রহণ
বিশ্ব ইজতেমায় আগত লাখ লাখ মুসল্লির সঙ্গে ইজতেমা ময়দানের পূর্ব পাশে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে স্থাপিত পুলিশ কন্ট্রোল রুমে বসে আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আকম মোজাম্মেল হক এমপি, স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, যুগ্ম-সচিব মো. আব্দুল খালেক, যুগ্ম-সচিব সুলতান মাহমুদ, জেলা প্রশাসক মো. নূরুল ইসলাম, পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি শফিকুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ হারুন অর রশীদ পিপিএম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মহসিন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট এসএম মোস্তফা কামাল, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান। তবে এবারই প্রথম কোনো ভিভিআইপি ইজতেমা ময়দানে এসে মোনাজাতে অংশ নেননি।






মন্তব্য চালু নেই