মেইন ম্যেনু

ট্রানজিটে বাংলাদেশ লাভবান হবে : নৌমন্ত্রী

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, ট্রানজিটের মাধ্যমে বাংলাদেশ লাভবান হবে। বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে ভারতে পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে একটি অর্থনৈতিক খাত উন্মুক্ত হলো। এটি বাংলাদেশের অর্থনীতিকে আরো গতিশীল করবে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় আশুগঞ্জ বন্দরে নৌ প্রটোকল চুক্তির আওতায় ভারতীয় পণ্য বাংলাদেশের ওপর দিয়ে পরিবহনের প্রথম চালানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন উপলক্ষে সুধী সমাবেশে নৌমন্ত্রী এসব কথা বলেন। পায়রা উড়িয়ে ভারতীয় জাহাজ নিইটেক-৬ থেকে লোহা জাতীয় পণ্য আনলোড করার মধ্য দিয়ে ট্রানজিট কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।

এ সময় নৌ মন্ত্রণালয়ের সচিব অশোক মাধব রায়ের সভাপতিত্বে আশুগঞ্জ ফেরিঘাট সংলগ্ন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) আশুগঞ্জ গুদামের অভ্যন্তরে এ সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে নৌমন্ত্রী আরো জানান, বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে ভারতীয় পণ্য পরিবহনে প্রতি টনে ১৯২ টাকা ২২ পয়সা হারে মাশুল আদায় করা হচ্ছে। এ ছাড়া ভারতীয় পণ্য পরিবহনে প্রতিটি জাহাজের জন্য নির্ধারিত সব ধরনের চার্জ ও ফি ট্রানজিট পণ্য থেকে আদায় করবে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো। এর মধ্যে ভয়েজ পারমিশন ফি, পাইলট ফি, বার্দিং (অবস্থান) ফি, ল্যান্ডিং ফি, চ্যানেল চার্জ ও লেবার হোলিং মিলে ভারতের প্রথম ট্রানজিটের পণ্যবাহী এ জাহাজ থেকে বাংলাদেশ পাবে দুই লাখ ৯৫ হাজার ৩৬৫ টাকা।

সুধী সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিকবিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য র আ ম ওবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী, আশুগঞ্জ-সরাইল আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা, ঢাকাস্থ ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান, বিআউডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমোডর এম মোজাম্মেল হক, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক ড. মোশাররফ হোসেন, পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, বাংলাদেশ নৌযান মালিক সমিতির সভাপতি মাহবুব উদ্দিন বীরবিক্রম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার, আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হাজি সফি উল্লাহ মিয়া প্রমুখ।

এর আগে গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় এমভি নিউটেক-৬ নামে একটি জাহাজ এক হাজার টন লোহাজাতীয় পণ্য নিয়ে আশুগঞ্জ বন্দরের মেঘনা নদীর মাঝখানে নোঙর করে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌযান কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) জানিয়েছে, এর আগে পরীক্ষামূলকভাবে দুই দফায় ফি ছাড়াই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মালামাল এবং খাদ্যশস্য ট্রানজিট করেছিল ভারত। তবে আনুষ্ঠানিক ট্রানজিটের আওতায় এই প্রথম বাংলাদেশের আনবিস ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড নামের একটি কোম্পানির তত্ত্বাবধানে জাহাজটি বন্দরে এসেছে। ১০০৪ টন এসএস পণ্য নিয়ে কলকাতা থেকে গত ৩ জুন জাহাজটি রওনা হয়ে গতকাল বেলা ১১টায় আশুগঞ্জ আন্তর্জাতিক নৌবন্দরে এসে পৌঁছায়।






মন্তব্য চালু নেই