মেইন ম্যেনু

ট্রাম্পের আবেদনময়ী তিন স্ত্রী কে কোথায়?

এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে আলোচিত নাম যুক্তরাষ্ট্রের ধনকুবের ডোনাল্ড ট্রাম্প। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দল থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী ট্রাম্প সবার চেয়ে এগিয়ে আছেন। তার নামের সঙ্গে সমানে আলোচিত হচ্ছে তার তিন স্ত্রীর নামও। দুই স্ত্রী ট্রাম্পের ঘর ছেড়ে গেছেন। সঙ্গ দিচ্ছেন একজন। সাবেক ও বর্তমান তিন স্ত্রীই আবেদনময়ী নারী হিসেবে পশ্চিমা দুনিয়ায় জনপ্রিয়। কারণ তিনজনই তাদের ক্যারিয়ারের শুরুতে ছিলেন মডেল।

ট্রাম্পের মডেল স্ত্রীরা এখন কে কোথায়? মিডিয়ার উৎসুক চোখ খুঁজে চলেছে তাদের। আর গড়গড়িয়ে বেরিয়ে আসছে জানা-অজানা নানা তথ্য। একনজরে দেখে নেওয়া যাক ট্রাম্পের লাস্যময়ী তিন স্ত্রীর হালচাল।

ইভানা ট্রাম্প

ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রথম স্ত্রী ইভানা। জনপ্রিয় মডেল ছিলেন। অসংখ্য পুরুষের ঘুম হারাম করা ইভানা শেষ পর্যন্ত মালা পরান নিউইয়র্কের নামি ব্যবসায়ী ট্রাম্পের গলায়। রাজকীয় আয়োজনে বিয়ে হয়েছিল তাদের।

ইভানা চেকোস্লোভাকিয়ার নাগরিক। ১৯৪৯ সালে জন্ম নেওয়া ইভানার বেড়ে ওঠা মাতৃভূমির আলো-বাতাসে। প্রাগের চার্লস ইউনিভার্সিটি থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেওয়া ইভানা আলফ্রেড উইঙ্কলমায়ার নামে এক ব্যক্তিকে বিয়ে করেন। তার সঙ্গে ১৯৭৬ সালে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। তারপর পেশাগত কারণে কানাডা চলে যান। কানাডা থেকে যুক্তরাষ্ট্র। একটি ফ্যাশন অনুষ্ঠানে দেখা হয় ট্রাম্পের সঙ্গে। সুন্দরী ইভানার প্রেমে পড়ে যান ট্রাম্প।

ইভানার সৌন্দর্য ট্রাম্পকে এতটাই বিভোর করে রেখেছিল যে, বিবাহিত হওয়া সত্ত্বেও নিঃসংকোচে ইভানাকে জীবনসঙ্গী করতে এতটুকু দ্বিধা করেননি ট্রাম্প। নিউইয়র্কে জাঁকজমকপূর্ণ বিয়ের মধ্যে ট্রাম্প-ইভানার বিয়ে ছিল একটি। যুক্তরাষ্ট্রে তখন যাদের জগৎজোড়া খ্যাতি ছিল, তাদের মধ্যে অধিকাংশই ট্রাম্পের বিয়েতে দাওয়াত পেয়েছিলেন।

১৯৭৭ সালে ট্রাম্পের সঙ্গে বিয়ের পর ১৯৯২ সাল পর্যন্ত ভালোই কেটেছিল ইভানার সংসার। ট্রাম্পের ব্যবসায় নিজেও ডুবে গিয়েছিলেন। ১৫ বছরের সংসার জীবনে ট্রাম্প ও ইভানার তিন সন্তান। ১৯৯২ সালে ছাড়াছাড়ি হয় তাদের।

তিন বছর বাদে আবার বিয়ে করেন ইভানা। আরেক ব্যবসায়ী রিকার্ডো মাজ্জুসেলিকে ১৯৯৫ সালে বিয়ে করে তার সঙ্গে মাত্র তিন বছর সংসার করেন। প্রায় এক দশক একাকী থাকার পর আবার বিয়ে করেন ইভানা। রোসানো রুবিকন্ডি নামে এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে মাত্র দুই বছরের মতো সংসার করেন। শেষ জীবনে তিনি একা। তবে সামাজিক ও উন্নয়নমূলক অনেক কাজের সঙ্গে জড়িত আছেন।

মারলা ম্যাপলস

ট্রাম্পের দ্বিতীয় স্ত্রী মারলা ম্যাপল হলিউড সুন্দরী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে দারুণ জনপ্রিয়। আবেদনময়ী ম্যাপলস বেশ কিছু মুভিতে অভিনয় করে খ্যাতি কুড়িয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী বাসিন্দা এই অভিনেত্রী ১৯৯০ সালের দিকে ট্রাম্পের প্রেমে পড়েন। বেশ কিছুদিন চুটিয়ে প্রেম করার পর ১৯৯৩ সালে ট্রাম্পের ঘরণি হয়ে যান। বেশি দিন টেকেনি তাদের সংসার।

প্রায় ছয় বছর পর ট্রাম্পের বিশাল ধনসম্পদের পাহাড় ফেলে ঘর ছাড়েন ম্যাপলস। ১৯৯৯ সালে বিচ্ছেদ হওয়ার আগে তাদের সংসারে এক সন্তান আসে। সংসারের টানাপোড়েনে নিজের ক্যারিয়ার থেকে সরে আসেন তিনি। অভিনয়ের পাশাপাশি সংগীতে তার খ্যাতি রয়েছে। সব মিলে এখন ভালোয় ভালোয় সময় পার করছেন ম্যাপলস।

ম্যাপল সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, দৈহিক মিলনে ট্রাম্পই তাকে সর্বোচ্চ সুখ দিতে পেরেছেন। সাবেক স্বামী ট্রাম্প এখন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার জন্য লড়ছেন। তাই ঘরে বসে নেই ম্যাপলস। তার পক্ষে বিভিন্নভাবে সমর্থন জোগাড়ের চেষ্টা করছেন তিনি।

মেলানিয়া নাউস

ট্রাম্পের তৃতীয় ও বর্তমান স্ত্রী মেলানিয়া নাউস স্লোভেনিয়ান বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক। পেশায় মডেল। অলংকার ও ঘড়ির নকশা করেও খ্যাতি কুড়িয়েছেন তিনি। এখন তার সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি ট্রাম্পের স্ত্রী।

১৯৭০ সালে জন্ম নেওয়া মেলানিয়া ১৬ বছর বয়স থেকে মডেলিংয়ে আসেন। তারপর পাড়ি জমান ইতালি। সেখান থেকে যুক্তরাষ্ট্র। তারপর শুরু হয় ট্রাম্পের সঙ্গে প্রেমকাহিনি। ২০০৫ সালে ট্রাম্পকে স্বামী হিসেবে গ্রহণ করেন মেলানিয়া। মেলানিয়া বেশ কিছু আন্তর্জাতিক ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ মডেল হয়েছেন। তার আবেদনময়ী শরীরের ভাষা পড়ে বোঝা যায়, ট্রাম্পের উজ্জীবনী শক্তির উৎস আসলে কোথায়।






মন্তব্য চালু নেই