মেইন ম্যেনু

ট্রেন লাইনচ্যুত, ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাটে মালবাহী একটি ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়ে গেলে দুই চালক আহত হয়েছে। পরে তাদেরকে চট্টগ্রাম রেলওয়ে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুর্ঘনায় পর পরই ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। দুর্ঘটনায় মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিনটি লাইন থেকে ছিটকে পাশে পড়ে যায়।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর পরই ফায়ার সার্ভিসের লোকজন দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসে এবং উদ্ধার অভিযানে অংশ নেয়। এদিকে বিকালে চট্টগ্রামের পাহাড়তলীতে ঢাকাগামী ঊর্মি গোধূলী এক্সপ্রেসের তিনটি বগি লাইনচ‌্যুত হয় গেলে ঢাকা ও সিলেটের সঙ্গে চট্টগ্রামের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

মালবাহী ট্রেনের আহত দুই চালকের নাম মহিন উদ্দিন (৫৯) ও সহকারী চালক মাহিদুল ইসলাম (৩৫)। মহিন উদ্দিন চট্টগ্রাম বন্দরের পোর্ট কলোনি এলাকার বাসিন্দা। মাহিদুল ইসলাম আনোয়ারা উপজেলার ষোলকাটা গ্রামের বাসিন্দা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা ১১টার দিকে ট্রেনটি চট্টগ্রাম বন্দর সংযোগ লাইন থেকে ঢাকামুখী মূল লাইনে ওঠার সময় ইঞ্জিনটি বিকট শব্দে কাত হয়ে পড়ে যায়। এ সময় চালক মহিন উদ্দিন ইঞ্জিনের একপাশে গাছের সঙ্গে আটকা পড়েন। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে।

চালক মহিন উদ্দিন বলেন, ‘সকাল ১০টা ২০ মিনিটের সময় বন্দর থেকে ট্রেন চালানো নির্দেশনা (লাইন ক্লিয়ার) নিয়ে ১১টার দিকে ট্রেন ছেড়ে আসে। সাড়ে ১১টার দিকে মূল লাইনের সিগন্যাল লাইট দেখতে না পেয়ে ট্রেন থামান। ২ মিনিট পর সিগন্যালের বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে ট্রেনটি পুনরায় চালান। এতে মূল লাইনে উঠতে না উঠতে ইঞ্জিনটি পড়ে যায়।’

পাহাড়তলীতে যাত্রীবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত

এদিকে পাহাড়তলী স্টেশনের কাছে ঢাকাগামী ঊর্মি গোধূলী এক্সপ্রেসের তিনটি বগি লাইনচ‌্যুত হয় গেলে ঢাকা ও সিলেটের সঙ্গে চট্টগ্রামের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। পাহাড়তলী থানার ওসি রনজিৎ কুমার বড়ুয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

লাইনচ‌্যুত ট্রেনটি তুলতে কাজ শুরু হচ্ছে বলে রেল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই