মেইন ম্যেনু

ঠাকুরগাঁও’র রাণীশংকৈলে ফলদ বৃক্ষ মেলার উদ্ভোধন

“দিন বদলের বাংলাদেশ, ফল বৃক্ষে ভরবো দেশ” ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈলে ফলদ বৃক্ষ মেলার উদ্ভোধন করা হয়েছে। উপজেলা হলরুমে বুধবার বিকালে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আয়োজিত ৩ দিন ব্যাপি এ মেলার উদ্বোধন করেন ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের সাংসদ অধ্যাপক ইয়াসিন আলী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান মাহফুজা বেগম পুতুল ও মিজানুর রহমান।
অন্যান্যদের মধ্যে উপজেলা আ.লীগ সভাপতি সইদুল হক, সম্পাদক তাজউদ্দীন, কৃষি অফিসার মাজেদুর ইসলাম, অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম, প্রেসক্লাবের সম্পাদক প্রভাষক সফিকুল ইসলাম শিল্পী, সঞ্জয়দেব নাথ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও আ.লীগ নেতা প্রভাষক সফিকুল আলম,সাংবাদিকসহ বহু কৃষক উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

বাংলা বছরের বৈশাখ শ্রাবণ এ ৪ মাসে আমাদের মোট উৎপাদিত ফলের ৫৬% পাওয়া যায় আমাদের দেশেই। আর বছরের বাকি ৮ মাসে অর্থ্যাৎ ভাদ্র-চৈত্র মাসে মোট ফসলের ৪৬ শতাংশ পাওয়া য়ায়। আমাদের দেশের আবহাওয়া ও মাটি ফল চাষের বেশী উপযোগী। এদেশের প্রায় ১৩০ জাতের ফল উৎপাদিত হয়ে থাকে এবং দেশের মোট আবাদী জমি প্রায় ২.৫% বর্তমানে ফল আবাদের আওতায়। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় আমাদের জাতীয় ফল কাঁঠাল পাকা ফল সরাসরি খাওয়া যায়, পাশাপাশি কাঁচা ফল ও এর বীজ তরকারি হিসাবেও খাওয়া যায়। অবশিষ্ট অংশ গোবাদি পশুর উৎকৃষ্টি খাবার প্রতিটি দেশেই ফলের ব্যাপক পুষ্টিমান ও বহুমুখি ব্যবহার রয়েছে। জাম, সফেদা, ডেউয়া, গোলাপজাম,চালতা, সাতকরা, করমচা, কাউফলসহ অনেক ফলেই হারিয়ে যেতে বসেছে। পুষ্টিমানের দিক থেকে দেশি ফল পিছিয়ে নেয়, ঔষুধীগুনের দিক থেকে দেশি ফলের জুড়ি নেই এমন বক্তব্যে দর্শকশ্রোতাদের মনোনিবেশ ছিল একান্তই চোখে পড়ার মতো। রাণীশংকৈল ইউএনও সকলকে গাছ লাগানোর জন্য বিশেষভাবে পরামর্শ দেন।

৩ দিন ব্যাপি ফলদ ও বৃক্ষ মেলার দর্শনীয় গাছের চারার বহু দোকান দেওয়া রয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাদেকুল ইসলাম উপ-সহকারী কৃষি শিক্ষা অফিসার।






মন্তব্য চালু নেই