মেইন ম্যেনু

ঠাকুরগাঁওয়ের মৎস্য চাষী নুরুল ইসলামের সাফল্য

শরিফুল ইসলাম, ঠাকুরগাঁও থেকে: সাগর নদী সকল জলে মাছ চাষে সোনা ফলে । মাছ থাকে তাই ঘরে ঘরে । ঠাকুরগাঁওয়ের ৯নং রায়পুর ইউনিয়নের অনন্য এক মৎস্য চাষীর নাম নুরুল ইসলাম। তিনি ছয় বছর আগে মাছ চাষ শুরু করেন । কাংখিত সাফল্য পেয়ে ব্যাপক আকারে মাছ চাষ করছেন। এখন তার ৯টি পুকুর। তার খামারে শতাধিক শ্রমিক কাজ করে সংসার চালাচ্ছে । নুরুল ইসলাম শুধু চাষী নয়। তিনি চৌদ্দ বছর জনপ্রতিনিধি ওছিলেন।তিনি হলেন ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান।

সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ও মাছ সংরক্ষন প্রক্রিয়া জাত করণ ব্যবস্থা গড়ে উঠলে এ এলাকা মৎস্য চাষের উজ্জল সম্ভবনা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। নুরুলে’র খামারের উৎপাদিত মাছ স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ দিচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে।

মৎস্য চাষী নুরুল ইসলাম বলেন,শুধু নিজের উন্নয়নই করেনি বরং এলাকার শতাধিক যুবকের মৎস চাষের আয়ের পথ ও কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করেছি।

তিনি আরো জানান,সরকারী ভাবে যদি মাছের রোগ নির্নয় ও ঔষুধ বিনামুল্যে পাওয়া যায় তাহলে মৎস্য চাষ আরো বাড়বে বলে মনে করেন । যাতায়াত ব্যবস্থা রাস্তা-ঘাটের অভাব।র্ কাচা জনাকীর্ণ রাস্তা বর্ষা’র মৌসুমে এই রাস্তা চলাচল করা একে বারে অসম্ভব হয়ে উঠে।

রাস্তা ভাল হলে মাছের খাদ্য ও রেনু পোনা মাছ দুর-দুরান্ত থেকে যানবাহনে নিয়ে আসলে লাভবান হতেন বলে ও জানান তিনি। সাবেক এই ইউপি চেয়ারম্যানের উচ্চ শিক্ষিত ছেলে নিশাত বাবা’র কাজে অনুপ্রানিত হয়ে সহযোগিতা করছেন।

তিনি জানান, এলাকার অসহায় দরিদ্র লোকদের কে উন্নত প্রশিক্ষনের মাধ্যমে কাজ করে সাবলম্বী হতে চাই। তিনি মনে করেন,শিক্ষিত সমাজ যদি এগিয়ে আসে যারা অশিক্ষিত তারা ও সঠিক পরামর্শ পাবেন।






মন্তব্য চালু নেই