মেইন ম্যেনু

ডায়েটিং যখন ক্যান্সারের কারণ

সুস্থ থাকার জন্য ডায়েটিং করেন অনেকেই। কিন্তু সেই ডায়েটিং যদি সঠিকভাবে না হয় তবে কিন্তু বেশ ঝুঁকি রয়েছে। যদি ভেবে থাকেন ডায়েটিং করছেন বলেই আপনি একেবারে নো রিস্ক জোনে রয়েছেন, তাহলেই রিস্কটা সবচেয়ে বেশি। শুধু ক্যান্সার নয়, ভুলভাল ডায়েটিং থেকে শরীরে থাবা বসাতে পারে ডায়েবেটিজ সহ নানারকম জটিল রোগও।

আমেরিকা, নরওয়ে আর দক্ষিণ কোরিয়ার কিছু গবেষকের মতে, ওজন যত কম হতে থাকে, ততই কিছু বিষাক্ত ও শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর (জৈব পদার্থ) পদার্থ মিশতে থাকে রক্তে। ফলে রক্ত ক্রমশ দূষিত হয়ে পড়ে। পরীক্ষার জন্য ৪০ বছরের বেশি বয়সের ১০৯৯ জনের উপর পরীক্ষা চালিয়েই এই তথ্যটি খুঁজে পেয়েছেন তারা। গত দশ বছর ধরে এদের পরীক্ষা করা হয়েছে, যারা প্রবলভাবে ডায়েটিং করছেন।

আর যতবারই এদের রক্তপরীক্ষা করা হয়েছে, ততবারই এদের রক্তে দূষিত পদার্থের মাত্রা বেশি পাওয়া গিয়েছে। কারণ মাত্রাতিরিক্ত কম খেলে শরীরের হজম প্রক্রিয়া ঠিকমতো হয় না। ফলে অনেক ক্ষতিকর পদার্থ জমতে থাকে শরীরে। কারণ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমরা নিজেদের মতে ডায়েটিং করে ক্ষতি করি নিজেদের স্বাস্থ্যেরই। এতে বিগড়ে যায় পুরো বডি কানিজমটা।

কম খেয়ে থাকা লোকজনের রক্ত পরীক্ষা করে তার মধ্যে এমন কিছু রাসায়নিক পাওয়া গিয়েছে যা স্তন ক্যান্সার, অ্যালজাইমার্স-এর মতো রোগের সম্ভাবনাই শুধু বাড়ায় না, মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতাকেও কমিয়ে দেয় কয়েকগুণ। আর এই দূষিত পদার্থগুলো রক্তে থাকতে থাকতে ক্রমশ জন্ম দেয় ক্যান্সারের। এমন কি সম্ভাবনা থেকে যায় জটিল স্নায়ুরোগে আক্রান্ত হওয়ারও।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই