মেইন ম্যেনু

ডুবচরে আটকা ফেরিটি ৫ দিনেও উদ্ধার হয়নি

১৮টি যানবাহন নিয়ে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের লৌহজংয়ে টাপলু নামে একটি ফেরি পাঁচদিন ধরে ডুবচরে আটকা পড়ে আছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে আটকা পড়া ফেরিটি শনিবার বিকেল পর্যন্ত উদ্ধার করতে পারেনি বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)।

ফেরিটিতে ১৮টি ছোট-বড় যানবাহনসহ দুই শতাধিক যাত্রী ছিলেন। তবে অন্য নৌযানের সহায়তায় যাত্রীরা ফেরি থেকে নেমে যেতে পারলেও চালক ও হেলপারসহ গাড়িগুলো ফেরিতেই আটকে আছে।

ফেরিটিতে ৩টি দূর পাল্লার বাস, ৭টি মাল বোঝাই ট্রাক এবং ৮টি ছোট ও মাঝারি ধরনের পরিবহন রয়েছে।

শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক আহমেদ আলী বলেন, ‘মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ফেরিটি আটকা পড়ার পর থেকেই সেটিকে উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘টানা ফেরি চালানো হয় ট্যাগবোট দিয়ে। একটি ট্যাগবোট দিয়ে একটি ফেরি চালানো হয়। কিন্তু আমরা আটকা পড়া ফেরিটি উদ্ধারে ৮টি ট্যাগবোট দিয়ে চেষ্টা করেছি। তবুও এটি চলাচল স্বাভাবিক করা সম্ভব হয়নি।’

টাপলু ফেরির ট্যাগ বোট চালক মো. শাহ উদ্দিন বলেন, ‘নাব্যতার কারণে ফেরিটি ডুবচরে আটকা পড়ে।’

ফেরিতে ৫দির ধরে আটকা থাকা সাতক্ষীরার ট্রাক চালক শাহিন আলম আওয়ার নিউজ বিডি’কে জানান, আমরা এই ৫দিন ধরে ডুবচরে আকটা পড়ে আছি। এখনো পর্যন্ত উদ্ধারের কোনো চেষ্টাই সফল হয়নি। মাঝ দরিয়ায় আটকা পড়ে খাওয়া দাওয়া গোসল সহ নানা সমস্যায় ভুগতেছি।

ফেরিতে আটকা এক প্রাইভেটকার চালক বলেন, ‘স্যার ম্যাডামসহ চারজন যাত্রী ছিল। তারা বুধবার সকালে স্পিড বোটে করে চলে গেছে। এখন এখানে ক্যান্টিনে খাই আর গাড়ির সঙ্গে পড়ে থাকি।’

ট্রাকচালক মনজু মিয়া বলেন, ‘কিছু দিন আগে ঘাটে চারদিন আটকা পড়েছিলাম। এখন নদীর মাঝে ফেরিতে পাঁচদিন ধরে আটকা আছি। কবে যে ঘাটে পৌঁছতে পারব তাও জানি না। এভাবে আটকে থাকায় অনেক লোকসানে পড়ে গেলাম।’






মন্তব্য চালু নেই