মেইন ম্যেনু

তরুণীকে হত্যা করে দীর্ঘদিন মরদেহের সঙ্গে যুবকের যৌন সম্পর্ক

অবৈধ পন্থায় যৌনতা একজন মানুষকে কতটা নির্দয় ও পশুর মত করে তোলে, তা আমরা অনেক আগেই জেনেছি। তেমনি আবারো একটি দৃষ্টান্ত অামাদের সামনে এসেছে। ‘গেট টুগেদার’ করতো তারা। এক পর্যায়ে পেরী নামক ওই তরুণীর ওপর যৌন লালসা চলে আসে অস্ট্রিনের। নানা ভাবে তাকে বুঝিও যখন তার লালসা মিটাতে পারেনি তখন পেরীকে হত্যা করে দিনের পর দিন মরদেহের সঙ্গে যৌন লালসা মেটায়।

এই অমানবিক ঘটনাটি ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের সিলোম স্প্রিং-এর মিডো কোর্ট এলাকায়। ওই এলাকার ২০০ নম্বর বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতেন লেসলি পেরী ও অস্ট্রিন গ্রামার। তারা একাই এলাকার একটি কফি শপে চাকরি করতেন। সেই সুবাদেই তাদের পরিচয়। তাবে তাদের মধ্যে কোন প্রেমের সম্পর্ক ছিলো কিনা তা জানায়নি পুলিশ।

অস্টিনের বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে, গত ১৭ ফেব্রুয়ারির অন্তত দিন সাতেক আগে সে পেরীকে খুন করে। তার পর তার মরদেহের পোশাক-আশাক খুলে নিয়ে সেই সঙ্গম করা শুরু করে। প্রতি দিন বেশ কয়েক বার করে পেরীর মরদেহের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করতো। তার বক্তব্যের সত্যতার প্রমাণও পেয়েছে পুলিশ। ডাক্তারি পরীক্ষায় পেরীর মরদেহের যোনির ভিতর থেকে বীর্যের নমুনা সংগৃহীত হয়েছে। সেই বীর্য যে অস্টিনেরই তারও প্রমাণ মিলেছে।

তবে ঠিক কি কারণে পেরীকে হত্যা করে অস্ট্রিন তা জানায়নি পুলিশ।






মন্তব্য চালু নেই