মেইন ম্যেনু

তরুণীর মৃত্যু নিয়ে রহস্য, ২ বন্ধু আটক

কক্সবাজারের একটি অভিজাত হোটেলে সোনিয়া আক্তার (২৫) নামে এক তরুণীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তাকে কেউ ধাক্কা দিয়ে হোটেলের ছয় তলা থেকে ফেলে দিয়েছে, নাকি নিজেই লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন তা এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। তবে এ ঘটনায় নিহতের দুই বন্ধুকে আটক করা হয়েছে।

বন্ধু শামিউল হক (৩৪) ও সুদীপ রায় (৩৫) কক্সবাজারে বেড়াতে এসে শনিবার থেকে হোটেল কক্স টুডে-তে সোনিয়ার সঙ্গে অবস্থান করছিলেন বলে জানিয়েছেন সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুর রহিম। মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনে পুলিশ তদন্ত চালাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

নিহত সোনিয়া আক্তার বরগুনা সদর উপজেলার মো. আলমগীর মাতবরের মেয়ে। তবে আটককৃতদের সঠিক পরিচয় নিশ্চিত করে জানাতে পারেনি পুলিশ।

রোববার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে হোটেল কক্স টুডের দ্বিতীয় তলায় এয়ারকুলার আউটডোর ইউনিটের সঙ্গে আটকানো অবস্থায় সোনিয়ার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে এসআই আব্দুর রহিম জানান, মৃতদেহ উদ্ধারের পরপরই হোটেল থেকে সুদীপকে আটক করা হয়। পরে রোববার রাতে পালিয়ে যাওয়ার সময় শামিউল হককেও আটক করা হয়। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

তিনি জানান, আটক দু’জনই নিহত সোনিয়ার বন্ধু। তারা তিন জন শনিবার হোটেল কক্স টুডে-তে ওঠেন। রোববারও তারা হোটেলে আলাদা কক্ষে অবস্থান করছিলেন। মৃতদেহ উদ্ধারের পর হোটেল কক্ষ তল্লাশি করে একটি মদের বোতল পাওয়া যায়।

এসআই আব্দুর রহিম জানান, নিহত সোনিয়ার সঙ্গে সুদীপের তিন বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। রোববার বিকেলে তারা তিন বন্ধু মিলে মদ পান করেন। পরে সুদীপ আর সোনিয়া হোটেলের ছয় তলার করিডোরের পাশে বসে সম্পর্কের নানা দিক নিয়ে আলাপ করছিলেন। এক পর্যায়ে প্রেমের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে সোনিয়া করিডোরের ওপর উঠতে গিয়ে নিচে পড়ে যান বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, রহস্য উদঘাটনের জন্য ময়নাতদন্তের পর নিহতের লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের হিমাগারে রাখা হবে। পরে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।






মন্তব্য চালু নেই