মেইন ম্যেনু

“তাদের বিচারের মধ্যদিয়ে আমরা পাপ মুক্ত হতে চলছি”

মাদারীপুর প্রতিনিধি: আমরা একটা গান শুনিছি ‘মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য’ মানুষেরও জীবন আছে গাছেরও জীবন আছে। পবিত্র হাদিস শরিফে বলা হয়েছে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বৃক্ষ রোপন কর, তাহলে জীবনের প্রয়োজনীয় কিন্তু গাছ এবং গাছ যদি আমরা যন্ত নানেই, গাছ যদি আমরা রোপন না করি তাহলে গাছরে জন্য যা প্রাপো তাহলে তা থেকে আমরা বঞ্চিত।

মাদারীপুরের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে বৃক্ষ ও ফলদ বৃক্ষমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আলোচনা সভার প্রধান অতিথি হিসেবে নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান এ কথা গুলি বলেন ।

মন্ত্রী আরোও বলেন, তা আমরা লক্ষ্য করছি যে মুক্তিযোদ্ধের মাধ্যমে যে দেশ আমরা স্বাধীন করছি, সেই দেশ যারা পাকিস্তানিদের পক্ষ নিয়ে আমাদের মুক্তযোদ্ধের বিরুদ্ধে করছে আমাদেরকে হত্যা করছে ৩০ লক্ষ্য মানুষকে হত্যা করেছে, ৩ লক্ষ মা, বোনের সম্মান হানি করেছে।

সে লোক গুলির যখন বিচার হয়নি এবং বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছিল তখন তাদের যখন বিচার হয়নি, তখন দেশে পাপ মুক্তি না করার কারনে এই বাংলাদেশ আগায়ানি, যারা মহান মুক্তিযোদ্ধের বিরুদ্ধতা করছেন তার খুন করছে, ধর্ষন করেছে, বঙ্গবন্ধুকেও ১৯৭৫ সালে খুন করা হয়েছে।

শাজাহান খান বলেন, খুন যদি পাপ হয়, ধর্ষন যদি পাপ হয় তাহলে ১৯৭১ সালে যারা খুন করল ধর্ষন করল ৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারেও হত্যা করল তারা পাপি, সেই পাপিদের নিয়ে যারা রাজনিতি করছিল, সেই কারনে আমাদের দেশ উন্নতি হয় নাই। আমাদের দেশ গরীব হয়ে যাচ্ছিল, নি¤œ আয়ের বাংলাদেশ অর্থাত গরীব বাংলাদেশ।

বিশ্ব বলত এটি একটি গরিব দেশ, সেই দেশকে যুদ্ধা অপরাধীদের বিচারের মধ্য দিয়ে, বঙ্গবন্ধু হত্যার কারিদেরও বিচারের মধ্যদিয়ে, ধর্ষন কারিদের বিচারের মধ্যদিয়ে আমরা পাপ মুক্ত হতে চলছি। দেখন দেশ কিভাবে এগিয়ে গেছে। শেখ হাসিনা যখন পাপিদের বিচার করা শুরু করল এক পর এক।

জামায়াতি ইসলামের নিজামী, মুজাহিত, গোলাম আজম, সাঈদী এদের যখন এক পর এক বিচার করা শুরু করল। আজকে মীর কাশেমের ফাসি হবে। এই ঘটনা গুলো শেখ হাসিনার শাষন আমলে করল, এটা কি শেখ হাসিনা তার ইচ্ছেমত করল, তা নয় এ গুলো বিচার, বিচারের ফলর্সুতিতে, আজ বাংলাদেশ পাপ মুক্তি হতে চলেছে, যে কারনে আমরা কেমন উন্নতি করছি।

এই দেশে খাদ্য খারতি ছিল ৩০ লক্ষ মেট্রিক টন এই দেশে এখন খাদ্য ৩০ লক্ষ মেট্রিক টন পূরন করে, তা আরো ৩০ লক্ষ মেট্রিক টক বিদেশে রপ্তানি করছি।

মাদারীপুরের শনিবার জেলা প্রশাসন, কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তর ও বন বিভাগের আয়োজনে জেলা সদর জামে মসজিদের প্রাঙ্গনে আয়োজিত বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে বৃক্ষ ও ফলদবৃক্ষ মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের জেলা প্রশাসক মো: কামাল উদ্দিন বিশ্বাস এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরোও উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সরোয়ার হোসেন, ফরিদপুর সামাজিক বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো: এনামুল হক ভূইয়া, কৃষি সম্প্রাসারন অধিদপ্তর উপ-পরিচাল মো: রাজ্জাক, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পাভেলুর রহমান শফিক খান ও মাদারীপুরের সাবেক পৌর মেয়র নুরুল আলম বাবু চৌধুরী।

আলোচনা সভা শেষে নৌপরিবহন মন্ত্রী মাদারীপুরের ৫দিন ব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে বৃক্ষ ও ফলদবৃক্ষ মেলার উদ্বোধন করেন এবং শুকনী লেকে বিভিন্ন জাতের মাছের পোনা ছারেন।






মন্তব্য চালু নেই