মেইন ম্যেনু

তেল কি চুলের জন্য জরুরি?

চুল নিয়ে মানুষের ভাবনার শেষ নাই। নারী-পুরুষ সবাই কমবেশি নিজের চুল নিয়ে চিন্তা করেন। তবে অনেকেরই চুল নিয়ে ভুল ধারণা রয়েছে। যেহেতু প্রতিটি মানুষের সৌন্দর্য রক্ষায় কিংবা বর্ধনে চুল বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে, ফলে চুলের প্রতি অনেকেই খুব যত্নশীল।

অবাক ব্যাপার হচ্ছে, চুলের এই বাড়তি যত্নের মধ্যে অধিকাংশই সত্যিকার অর্থে চুলের কোনো কাজে আসে না। যেমন অনেকেরই ধারণা, তেল চুলের পুষ্টি যোগায় ও চুল পড়া বন্ধ করে। কিন্তু বৈজ্ঞানিক মতামত হচ্ছে যদিও চুলের যত্নে তেলের ব্যবহার অতি প্রাচীন কিন্তু সত্যি কথা হচ্ছে, চুলে তেল ব্যবহারে কোনো লাভ হয় না। তেল চুলের কোনো পুষ্টির কাজে আসে না। চুলের পুষ্টি চুল শিকড়ের মাধ্যমে শরীর থেকেই গ্রহণ করে। চুলের তৈলাক্ততা বৃদ্ধি বা রক্ষার করার জন্য মাথার ত্বকে অবস্থিত সিবাসিয়াস গ্ল্যান্ড থেকে এক ধরনের তৈলাক্ত পদার্থ নিঃসৃত হয়। এই তৈলাক্ত পদার্থের মাধ্যমে চুল নিজেই নিজের সৌন্দর্য বজায় রাখতে সক্ষম হয়। কাজেই চুলের সৌন্দর্য রক্ষায় তেলের দরকার নেই।

অনেকে মনে করেন, তেল চুল পড়া বন্ধ করে-এ ধারণাটিও ভুল। চুল পড়ার অনেক কারণ আছে।এ সব কারণের কিছু কারণ চিকিৎসাযোগ্য আর কিছু রয়েছে অচিকিৎসাযোগ্য। তেল চুল পড়ার চিকিৎসায় কার্যকরী বলে চিকিৎসা বিজ্ঞানের কাছে কখনো বিবেচিত হয়নি। চুলে তেল ব্যবহারে পুষ্টিগত কোনো লাভ নেই। কিন্তু তেল ব্যবহারে কখনো কখনো চুলের ক্ষতি হওয়ার আশংকা থাকে। তেলের পিএইচ কম হলে অর্থাৎ তেলের এসিড মাত্রা বেশি থাকলে সে ক্ষেত্রে চুল লালচে হয়ে যায়। আর এটি ধরা পড়ে চুলে যখন তেল দেয়া বন্ধ করা হয় তখনই। হালকা রঙের কাপড় ভেজা অবস্থায় যেমন গাঢ় রঙের দেখায়, শুকালেই ফ্যাকাসে হয়ে ওঠে, চুলের লালচে ভাবের ক্ষেত্রেও এই ভ্রান্তি ঘটে।

কাজেই তেল চুল কালো করে বলে যে ধারণা করা হয় সেটিও মিথ্যা। চুলে ভিটামিন যুক্ত তেল কিংবা পুষ্টিকর ও ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার(যেমন-ডিম) মাখলে চুল সুন্দর হয়- এমন ধারণা অনেকের। এ সম্পর্কে বৈজ্ঞানিক সত্য হলো, চুল পুষ্টি সংগ্রহ করে শেকড়ের মাধ্যমে। শেকড় জটিল প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রক্ত থেকে এই পুষ্টি গ্রহণ করে। চুলের যাবতীয় পুষ্টি আসে রক্ত থেকে। তাই চুলে পুষ্টি সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার জন্য খাবারে চুলের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি ও খনিজ পদার্থ গ্রহণ করতে হবে।

আমরা যে খাদ্যদ্রব্য গ্রহণ করি তা সরাসরি শরীরের কাজে লাগে না, খাদ্যদ্রব্য মুখ থেকে পাকস্থলী ও পরিপাকতন্ত্র পর্যন্ত হজমের জটিল প্রক্রিযার পর তা শরীরের কাজে আসে। কাজেই সরাসরি কোনো খাদ্যদ্রব্য চুলে মেখে লাভ হবে না।

তাছাড়া চুল বাইরে থেকে কোনো ধরণের পুষ্টি উপাদান বা ভিটামিন গ্রহন করার ক্ষমতা রাখে না। যে কারণে চুলের গায়ে দুনিয়ার যাবতীয় পুষ্টি ও ভিটামিনের ভাণ্ডার ঢেলে দিলেও কোনো লাভ হবে না। সুতরাং তেলে ভিটামিন থাকলেই কী আর না থাকলেই কী! কাজেই পুষ্টিকর খাবার মাথায় না ঢেলে পেটে চালান করলে অনেক লাভ হবে। আর তেলের বিজ্ঞাপনে যেসব প্রতিশ্রুতির কথা বলা হয় সেগুলো অধিকাংশই মিথ্যা- বিজ্ঞাপনের ফাঁদ






মন্তব্য চালু নেই