মেইন ম্যেনু

“দরিদ্র কৃষকের ৪০ বছরের বসতভিটায় শকুনের হাত”

মোহাম্মদ শামছুদ্দোহা, বান্দরবান: বান্দরবানের লামায় আজিজনগর ইউনিয়নের মোস্তাফিজুর রহমান ফাউন্ডেশনের মালিক আলহাজ্ব শফিক উদ্দিন আহাম্মদের বিরুদ্ধে ৪০ বছরের বসতি উচ্ছেদের অভিযোগ করেছে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক পরিবার।

৮ ফেব্রুয়ারী সোমবার লামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে আজিজনগর ইউনিয়নের পূর্ব চাম্বি আমতলী মুসলিম পাড়া এলাকার কৃষক জয়নাল আবেদীন (৫৫) ও রহিম আলী (৬৫) স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে এই অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগে জানা গেছে, আজিজনগর ইউনিয়নের পূর্ব চাম্বি আমতলী মুসলিম পাড়া এলাকার মোস্তাফিজুর রহমান ফাউন্ডেশনের মালিক আলহাজ্ব শফিক উদ্দিন আহাম্মদ প্রতারণা করে স্থানীয় জনসাধারণের জায়গা-জমি দালাল চক্রের সহযোগিতায় আত্মসাৎ ও ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে।

অভিযোগকারী কৃষক জয়নাল আবেদীন জানান, বিগত ৫ ফেব্রুয়ারী ২০০৮ইং জনৈক হারুনর রশিদের নিকট হইতে ১৪১নং হোল্ডিং এর আন্দর যৌথভাবে ৪ একর ২য় শ্রেণীর জমি বায়না নামা দলিল নং ১২২/০৮ ক্রয় করি। তথায় ঘরবাড়ি নির্মাণসহ ফলজ বনজ বাগান সৃজন করে দখলে আছি। কিন্তু বিবাদী জানাশর্তেও আমার ক্রয়কৃত জায়গা জবর দখল করার কু-মানসে উক্ত জায়গা পুনরায় ২০১২ সালের ক্রয় করে বর্তমানে জবর দখলে অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

অপরদিকে অভিযোগকারী রহিম আলী বলেন, আমি ৩০৭নং চাম্বি মৌজায় ৬৫০ নং হোল্ডিং এ ৪ একর ২য় শ্রেণীর জায়গায় ঘর বাড়ি নির্মাণ করিয়া দীর্ঘ ৩০/৩৫ বছর যাবৎ ভোগ দখলে আছি। কিন্তু প্রভাবশালী আলহাজ্ব শফিক উদ্দিন স্থানীয় কিছু দালাল চক্রের সহযোগিতায় ২৬৮নং অন্য একটি হোল্ডিং উপস্থাপন করে জায়গা জবর দখলের চেষ্টা করছে। যার হোল্ডিংয়ের পিতার নাম সম্পূর্ণ ভূল।

এদিকে জায়গা দখলে কৌশল হিসেবে ৭ ফেব্রুয়ারী বিকাল ৪টার সময় লামা থানার ৫জন পুলিশসহ স্থানীয় কয়েকজন লোক আমাদের বসত ভিটায় এসে হুমকি দিয়ে বলে, আলহাজ্ব শফিক উদ্দীন আহম্মদ তোমাদের বিরুদ্ধে লামা থানায় চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেছেন। ৮ ফেব্রুয়ারী লামা থানায় গিয়ে যোগাযোগ করবে।

অন্যথায় তোমাদের মারাত্মক ক্ষতি হবে। বর্তমানে আমরা আসামী ও স্থানীয় দালাল চক্রের ষড়যন্ত্রের স্বীকার। যে কোন মুহুর্তে আমরা অভিযোগকারীগণের জান-মাল ও জায়গা-জমি ঘ্রাস করে নিয়ে যেতে পারে। নিরুপায় হয়ে লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি।

লামা থানার দায়িত্বরত ডিউটি অফিসার পুলিশের উপ-পরিদর্শক রবিউল হোসেন জানান, কেবা কারা এ বিষয়ে গিয়েছিল আমি জানিনা।

এ বিষয়ে মোস্তাফিজুর রহমান ফাউন্ডেশনের মালিক আলহাজ্ব শফিক উদ্দিন আহাম্মদ বলেন, আমি লামা থানায় কোন চাঁদা বাজির মামলা করিনি। কৃষকদের উচ্ছেদের বিষয়ে আমি জানিনা।






মন্তব্য চালু নেই