মেইন ম্যেনু

দস্যু দমনে সুন্দরবনে স্মার্ট পেট্রোলিং অভিযান

সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য সুরক্ষা ও দস্যুতা দমনে শুক্রবার সকাল থেকে শুরু হয়েছে ‘স্মার্ট পেট্রোলিং’ অভিযান।

সুন্দরবনের চারটি রেঞ্জ সদর থেকে একযোগে শুরু হওয়া এই স্মার্ট পেট্রোলিং প্রাথমিকভাবে চলবে আগামী ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত।

বিশ্বের ৩১টি দেশের ১৪০টিরও বেশি জিওলোজিক্যাল সাইটে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর বন পাহারায় স্মার্ট পেট্্েরালিং পদ্ধতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের অর্থায়নে স্ট্রেইনদেনিং রিজিওনাল কোঅপারেশন ফর ওয়াইল্ডলাইফ প্রটেকশন প্রজেক্টের আওতায় শুক্রবার থেকে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর বন পাহারায় প্রবেশ করল বাংলাদেশ। এর মধ্যে দিয়ে সুন্দরবনে সব ধরনের দস্যুতা দমন এবং রয়েল বেঙ্গল টাইগারসহ বন্যপ্রাণি ও বনজ সম্পদ রক্ষা করা সহজ হবে- এমন আশা প্রকাশ করেছে সুন্দরবন বিভাগ।

বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম দুপুরে বলেন, বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনে স্মার্ট পেট্রোলিং দলের প্রশিক্ষিত সদস্যরা আধুনিক প্রযুক্তি ও অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বন অপরাধীদের গ্রেপ্তারে শুক্রবার সকাল থেকে অভিযানে নেমেছে। সুন্দরবনের শরণখোলা, চাঁদপাই, নলিয়ান ও বুড়িগোয়ালিনী- এই চারটি রেঞ্জের প্রতিটিতেই তিনটি করে স্মার্ট পেট্্েরালিং দলে একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার নেতৃত্বে সাতজন কর্মকর্তা ও ৯জন বনরক্ষীরা রয়েছে। প্রথম দুটি দল পালাক্রমে ১৫ দিন করে সুন্দরবনের প্রতি রেঞ্জে অভিযান চালাবে। তৃতীয় দলটি স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে প্রস্তুত থাকছে বিশেষ অভিযান পরিচালনার জন্য। প্রতিটি দলের সঙ্গে রয়েছে দুটি করে লঞ্চ, ওপেন টাইপ স্পিডবোট, ফাইবার বডি ট্রলার ও বিশেষ প্রয়োজনে একটি করে কেবিন ক্রুজার। স্মার্ট পেট্রোলিংকালে বন ও বন্যপ্রাণি সংক্রান্ত দস্যুতা দমন ছাড়াও সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগারসহ সব জীবিত বা মৃত বন্যপ্রাণি সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে জিআইএস ল্যাবে সংরক্ষণ করবে। এই স্মার্ট পেট্রোলিংয়ের মাধ্যমে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য সুরক্ষা ও দস্যুতা দমন সহজতর হবে।

খুলনা সার্কেলের বন সংরক্ষক (সিএফ) জহির উদ্দিন আহমেদ বলেন, বর্তমানে এই স্মার্ট পেট্রোলিং পদ্ধতি বিশ্বের ৩১টি দেশের ১৪০টিরও বেশি জিওলোজিক্যাল স্থানে চালু রয়েছে। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপাল, থাইল্যান্ডের বনাঞ্চল ও জাতীয় উদ্যানসমূহের জেডএসএল সাইটে স্মার্ট পেট্রোলিং পদ্ধতির ব্যবহার জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সীমিত আকারে পরীক্ষামূলক অভিযানের সাফল্যের পর প্রাথমিকভাবে ছয় মাসের জন্য গোটা সুন্দরবনে স্মার্ট পেট্রোলিং অভিযান শুরু হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই